,
সংবাদ শিরোনাম :
» « শ্যামনগরে ঘের মালিককে কুপিয়ে হত্যা» « আশাশুনিতে খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাধ ভাঙন ॥ নতুন করে আরও ১০ গ্রাম প্লাবিত» « চেয়ারম্যান ও সদস্যদের অবহিতকরন কোর্স উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক» « হাওড়দাহে উঠান বৈঠকে মীর মোস্তাক আহমেদ রবি এমপি ঃ শেখ হাসিনা দেশ কে এগিয়ে নিয়েছেন» « হনুমান আর কুকুরে অসম প্রতিযোগিতা ছোটাছুটি-দৌড়াদৌড়ি» « জলবায়ূ বিষয়ে সমমনা সংগঠনের সাথে সনাকের নেটওয়ার্কিং সভা» « লু স্টুডেন্ট ফোরামের উদ্যোগে গাড়ীর হেড লাইটে কালো স্টিকার» « সাতক্ষীরা ইসলামী ব্যাংকের উদ্যোগে ফ্রি চক্ষু শিবির অনুষ্ঠিত» « সাংবাদিক ফারুকের মা আর নেই» « সাতক্ষীরায় পূর্ব শত্র“তার জের এক যুবককে কুপিয়ে জখম» « নদী ভাঙ্গন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে

সংসদে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী \ নতুন করে কোন বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করা হবে না

ঢাকা ব্যুরো \ সংসদে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে এমপিওর্ভুক্ত হওয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাইরে নতুন কোন বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করার পরিকল্পনা সরকারের নেই। স্পিকার ড. শিরিন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া অধিবেশনে গতকাল সোমবার অ্যাড মো. জিয়াউল হক মৃধার এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী সংসদে এ তথ্য জানায়। টেবিলে উপস্থাপিত সাংসদের ওই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরও বলেন, ২০১৩ সালের ১ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা অনুযায়ী দেশের সকল রেজিস্ট্রার্ড, এমপিওর্ভুক্ত এবং আবেদিত ২৬ হাজার ১৯৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং পার্বত্য জেলায় ইউএনডিপি পরিচালিত ২৩১০টি বিদ্যালয় জাতীয়করণ করা হয়। বর্তমানে এসব ঘোষিত শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বাস্তবায়ন চলমান রয়েছে। তাই এসব প্রতিষ্ঠানের বাইরে নতুন করে কোন বিদ্যালয় জাতীয়করণের পরিকল্পনা আপাতত সরকারের নেই বলে সংসদকে জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী। সাংসদ জিয়াউল হক মৃধার অপর এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বলেন, দেশের যে সকল উপজেলায় কোন সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং কলেজ নেই যে সকল উপজেলায় একটি করে মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং একটি কলেজ সরকারিকরণের সিদ্ধান্ত সরকারের রয়েছে। সে আলোকে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কার্যক্রম চলছে। এমনকি দেশের সকল বেসরকারি শিক্ষকদের চাকরি জাতীয়করণের পরিকল্পনা আপাতত সরকারের নেই। প্রধান শিক্ষকের পদশূণ্য ২০৮৪৭টি : এ কে এম মাঈদুল ইসলামের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে গত বছরের অক্টোবর পর্যন্ত প্রধান শিক্ষকের পদ শূণ্য রয়েছে ২০ হাজার ৮৪৭টি। যার মধ্যে ঢাকা মহানগর, ভোলা, লক্ষীপুর এবং মেহেরপুর জেলায় মোট ৩৯৪জন শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে চলতি দায়িতদ্ব দেয়া হয়েছে। তাছাড়া নেত্রকোণা, কুষ্টিয়া ও ঠাকুরগাঁও জেলায় প্রধান শিক্ষকের চলতি দায়িত্ব প্রদানের প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। পদগুলো পূরণের কার্যক্রম চলছে। বাকি পদগুলোতে চলতি দায়িত্ব প্রদানের কার্যক্রম চলছে। মন্ত্রী আরও বলেন, প্রধান শিক্ষক পদটি ২য় শ্রেণিতে উন্নীত হওয়ায় এই পদের নিয়োগ বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি) থেকে সম্পন্ন হয়ে থাকে। পিএসসি থেকে ৩৪তম বিসিএস থেকে প্রধান শিক্ষকের পদ পূরণের জন্য ৮৯৮ জনের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে এবং তাদের শূন্য পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এছাড়া ৩৬তম বিসিএসে উন্নীতদের মধ্যে থেকে সরাসরি নিয়োগের জন্য পিএসসির নির্ধারিত ফরমে তথ্য প্রেরণ করা হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৬৩ শতাংশেরও বেশী মহিলা শিক্ষক : প্রাথমিক বিদ্যালয় বার্ষিক জরিপ ২০১৭ অনুযায়ী দেশে বর্তমানে ২৫ ধরনের প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে, যার মোট সংখ্যা ১ লাখ ৩৩ হাজার ৯০৭ টি। এ সকল বিদ্যালয়ে মোট ৫ লাখ ৫৭ হাজার শিক্ষাক কর্মরত আছেন। যার মধ্যে ৩ লাখ ৫১ হাজার ৮৬৩ জন মহিলা শিক্ষক, অর্থাৎ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৬৩.১৭ শতাংশই মহিলা শিক্ষক কর্মরত। এছাড়া প্রতিটি বিদ্যালয়ে ১জন করে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগ চলমান রয়েছে। সাংসদ নূরুল হকের এক প্রশ্নের জবাবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান সংসদকে এ তথ্য জানান। মন্ত্রী বলেন, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীদের বেতন ভাতা বাবদ বাৎসরিক ১০ কোটিরও অধিক টাকা সরকারের ব্যয় হয়। ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য রাজস্ব বাজেটে সর্বমোট ১০ কোটি ৮৪ লাখ ৫৯ হাজার ২০৬ টাকা ব্যয় হয়েছে।

Share
[related_post themes="flat" id="241876"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com