,
সংবাদ শিরোনাম :

২ কোটি টাকার বরাদ্দ থাকলেও আলোর মুখ দেখেনি আজও \ অল্প বৃষ্টিতে জলমগ্ন ঃ বর্ষা মৌসুমে প্রকটের সম্ভাবনা

11 Patkalgata Rasta Pani

পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি \ জৈষ্ঠ্য মাসের আজ প্রথম সপ্তাহ। সামনে আষাঢ়-শ্রাবণ বৃষ্টির ভরা মৌসুম। তুলনামুলক মাঝারি বৃষ্টিপাতের মধ্যদিয়ে কাল অতিবাহিত হচ্ছে। বৃষ্টির খুব একটা প্রভাব না থাকলেও মাঝে মধ্যে অল্প বৃষ্টিপাতেই ঐতিহ্যবাহী পাটকেলঘাটার অলিগলি জলমগ্ন আকার ধারণ করে আছে। রোদ্দুর ছাড়া এ বৃষ্টির পানি সরানোর কোনো উপায় লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। ফলোশ্র“তিতে আগামী ভরা বর্ষা মৌসুমে পাটকেলঘাটা বাজার জলাবদ্ধতায় কিরুপ আকার ধারণ করতে পারে তা নিয়ে রীতিমতো সচেতন মহলের কপাল ভাজ পড়তে শুরু করেছে। সরেজমিনে গতকাল বুধবার পাটকেলঘাটা বাজার ঘুরে তার সচিত্র দেখা যায়। সাপ্তাহিক হাটের দিন থাকায় লোকসমাগম ছিল তুলনামুলক অনেক বেশি। সঙ্গে হালখাতা যোগ হওয়ায় সকলের মনে অন্য রকম আনন্দ মুর্ছনা দেখা মেলে। সকাল সাড়ে ১০ টায় ঘন্টা খানেকের বৃষ্টিতে লোক যাতায়াতের ভাটা পড়ে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে লোক সমাগম পুনঃরায় নজর কাড়ার মতো। পরিতাপের বিষয় ছিল ততক্ষণে পাটকেলঘাটার অলিগলি জলাবদ্ধ পানিতে টই টুম্বুর। গুরুত্বপুর্ণ সড়ক পাটকেলঘাটার পোষ্ট অফিস থানার সামনে থেকে আধা কিলো, জোড়া টাওয়ার রোড, কালিবাড়ি রোড, পল­ীবিদ্যুৎ রোডের কিছু অংশ সহ পাটকেলঘাটার গুরুত্বপুর্ণ স্থাপনা জলমগ্ন দেখা মেলে। এতে ক্রেতা বিক্রেতা সাধারণের যাতায়াতের ক্ষেত্রে বিড়ম্বনার সম্মুখীন হন। হালখাতা করতে আসা থানার কুমিরা গ্রামের আব্দুস সালামের পুত্র শহিদুল ইসলাম জানান, অল্প বৃষ্টিতে পাটকেলঘাটার রাস্তাঘাট যেন তলিয়ে গেছে। আগামী বর্ষা মৌসুমে এর কি অবস্থা ধারণ করতে পারে তা ভাবনার বিষয়। সচেতন মহল বলছেন, গত কয়েক বছর ধরে পাটকেলঘাটার এ করুণ দশা যেন পাল্টালোই না। তাদের ধারণা যদি ড্রেনেজ ব্যবস্থা করে পানি বের করানো যায় তবে এমন কবলে আর পড়তে হবে না। সরুলিয়া ইউনিয়নের আব্দুল­াহ বলেন, বাজারের অভিভাবক আর বাজার কমিটির নেতৃবৃন্দ বলেন তারা যদি একটু দৃষ্টি দেয় তবে আশানুরুপ ভালো ফলাফল পাব বলে আশা করি। এ বিষয়ে সরুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান বলেন, উপজেলা প্রকৌশলী বরাবর এ বাজারের জন্য ২ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়। তারপর মাপযোপ নিয়ে গেলেও আজও তার ফল দেখতে পায়নি। তবে আগামী জুন মাসের মধ্যে হয়তো কাজ শুরু হতে পারে। এ ব্যাপারে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম বলেন, বাজারের এ জলাবদ্ধতার নাজুক অবস্থা দীর্ঘদিনের। বর্তমান সরকার রাস্তাঘাট উন্নয়নের জন্য যথেষ্ট দায়িত্বপরায়ণ। ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার পাশাপাশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অবহেলার কারণেই আজকের এ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

Share
[related_post themes="flat" id="254583"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com