,
সংবাদ শিরোনাম :
» « একনেকে ৪ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ইভিএম কেনার প্রকল্প অনুমোদন» « সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় দুঃস্থ পরিবার ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাঝে টিন বিতরন» « সুলতানপুর উঠান বৈঠকে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরলেন সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি» « কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের সংবাদ সম্মেলন ॥ আজ সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে জাতীয় নজরুল সম্মেলন» « সাতক্ষীরায় আদালতের নির্দেশ অমান্য করায় সাবেক ডিসি ও ইউএনও সহ তিন জনের কারাদন্ড» « পারুলিয়া ও কুলিয়ায় সমাবেশে অধ্যাপক ডাঃ আ,ফ,ম রুহুল হক এম,পি» « নজরুল ইসলামের নৌকার স্বপক্ষে পথসভা» « ভাঙ্গনের কবলে মুন্সীগঞ্জ বাজার রোড» « মরহুম চেয়ারম্যান মোশাররফের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া» « জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের পুরস্কার বিতরণকালে বিভাগীয় কমিশনার ॥ শিক্ষার্থীরা আগামীতে বিশ্বকে প্রতিনিধিত্ব করবে» « কুয়েটকে বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করতে চাই ॥ কুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন

গাজীপুর সিটি নির্বাচন নিয়ে নতুন কৌশলে ইসি \ বেশি কেন্দ্রে হবে ইভিএম

gazipur

জি এম শাহনেওয়াজ, ঢাকা থেকে \ গাজীপুর সিটি করপোরেশন (গাসিক) নির্বাচন নিয়ে নতুন করে কৌশল আটছে নির্বাচন কমিশন-ইসি। এ কৌশলের মধ্যে বেশি অগ্রাধিকার পেয়েছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)। খুলনা সিটির চেয়ে দ্বিগুনের বেশি কেন্দ্রে এ প্রযুক্তি ব্যবহার। এদিকে, খুলনা সিটিতে স্থগিত ৩ কেন্দ্রের অনিয়ম খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। কমিশনের যুগ্ন-সচিব খন্দকার মিজানুর রহমানকে আহবায়ক করে তিন সদস্যের কমিটির অন্য দু’জন হলেন, উপ-সচিব ফরহাদ হোসেন ও সিনিয়র সহকারি সচিব মো শাহ আলম। সিটি এলাকায় ২২-২৩ মে দুইদিন অবস্থান করে প্রকৃত কারণ অনুসন্ধান করে কমিশনকে প্রতিবেদন দেবে এ কমিটি। কমিটি কয়েকটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করবে; যার মধ্যে পুলিশের ভূমিকা কি ছিল, নিদিষ্ট সময়ে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছিল কি না, প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট ছিল কি না এবং ভোটকেন্দ্রে অনিয়ম সংঘটিত হওয়ার সময় প্রিসাইডিং অফিসারের কি ভূমিকা ছিল। খুলনার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা নির্বাচন কর্মকর্তাদের বক্তব্য নেবে কমিটি। এছাড়া খুলনা সিটির ১১টি কেন্দ্রে অস্বাভাবিক ভোট পড়া, স্বাক্ষর ছাড়া ব্যালটে সিল এবং অনিয়মের অভিযোগগুলোও কমিশন পর্যায় থেকে কঠোরভাবে তদারকি করা হচ্ছে। এ পর্যায়ে তারা মতামত নেবেন, -নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা, ইসির নিজস্ব পর্যবেক্ষক এবং ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের। ইতিমধ্যে অস্বাভাবিক ভোট পড়া কেন্দ্র নিয়েও অভ্যন্তরীন আলোচনা হয়েছে কমিশনার পর্যায়ে। তথ্যমতে, খুলনা সিটিতে পিটিআই ও সোনাপোতা এ দুটি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট নেওয়া হয়। দু’টির একটিতে নৌকা অন্যটিতে ধানের শীষের প্রার্থী বিজয়ী হন। সর্বসাক্কুলে ভোট হওয়া ২৮৬ কেন্দ্রের মধ্যে ৩০টি কেন্দ্রে বিএনপির প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু জয় পাই। বাকিগুলো নৌকার প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক জয়ী হয়ে নগর পিতা নির্বাচিত হয়েছেন। তবে, অস্বাভাবিক ভোট পড়া ১১টি কেন্দ্র নিয়ে বেশি হইচই পড়ে যায়। ওই এগারোটি কেন্দ্রের মধ্যে ৮টিতে ৮০ থেকে ৮৯ শতাংশ ভোট পড়ে এবং বাকি তিনটিতে ভোট পড়ার শতাংশ দেখা যায় ৯০ থেকে ৯৯ শতাংশ। এটাকে কমিশন অস্বাভাবিক হিসেবে দেখছে। বাকি কেন্দ্রগুলোর মধ্যে ৪৬টিতে ৭০-৭৯ শতাংশ, ১৩২টিতে ৬০-৬৯ শতাংশ, ৭৯টিতে ৫০-৫৯ শতাংশ, ১৬টিতে ৪০-৪৯ শতাংশ, ২০-৩৯ শতাংশ ভোট পড়েছে ১টি করে কেন্দ্রে, যা স্বাভাবিক মরে করছে কমিশন। কমিশন সংশ্লিস্টরা বলছে, অনিয়মের কারণে ৩টি কেন্দ্র স্থগিত করা হয়েছে। অস্বাভাবিক ভোট পড়া কেন্দ্রগুলো স্থগিত করা হলে নির্বাচনের এমন কোন ক্ষতি হতো না। রিটানিং অফিসার এবং প্রিসাইডিং অফিসার কেন এ ধরণের অস্বাভাবিক ভোট পড়া কেন্দ্রগুলো স্থগিত করেননি তা তাদের কাছে জবাব চাইবে কমিশন। তবে, এই কাজটি করা হচ্ছে অনেকটা গোপনীয়তার সঙ্গে, যাতে একটি পদক্ষেপ নিতে গিয়ে অন্য আরেকটি বিতর্কের মধ্যে কমিশন না পড়ে যায়। কেননা খুলনার সিটি নির্বাচন নিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক পক্ষ বিএনপি সোচ্চার এবং গণমাধ্যমেও ব্যাপকভাবে নেতিবাচক খবর ছাপা হচ্ছে। এদিকে, খুলনা সিটির ত্র“টিগুলো থেকে শিক্ষা নিয়ে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে তার প্রতিফলন দেখতে তৎপর কমিশন। তবে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি কমিশনের খুব একটা বেশি আস্থা নেই। তাই স্বাভাবিক নিয়মে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নির্বাচনে মোতায়েন করে প্রযুক্তির ব্যবহারকে বাড়াতে চাইছে ইসি। খুলনার দুটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করলেও গাজীপুরে ৫-৬টি কেন্দ্রে এ প্রযুক্তিকে রাখার পক্ষে কমিশন। এ লক্ষ্যে গতকাল রোববার একজন কমিশনারের নেতৃত্বে এ সংক্রান্ত একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া সিসি ক্যামের সংখ্যাও এ নির্বাচনে বাড়তে পারে। আগামী ২৬ জুন গাজীপুর সিটিতে ভোট এবং প্রার্থীদের প্রচারণা শুরু হবে আগামী ১৮ জুন থেকে।

Share
[related_post themes="flat" id="255224"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com