,
সংবাদ শিরোনাম :
» « একনেকে ৪ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ইভিএম কেনার প্রকল্প অনুমোদন» « সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় দুঃস্থ পরিবার ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাঝে টিন বিতরন» « সুলতানপুর উঠান বৈঠকে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরলেন সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি» « কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের সংবাদ সম্মেলন ॥ আজ সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে জাতীয় নজরুল সম্মেলন» « সাতক্ষীরায় আদালতের নির্দেশ অমান্য করায় সাবেক ডিসি ও ইউএনও সহ তিন জনের কারাদন্ড» « পারুলিয়া ও কুলিয়ায় সমাবেশে অধ্যাপক ডাঃ আ,ফ,ম রুহুল হক এম,পি» « নজরুল ইসলামের নৌকার স্বপক্ষে পথসভা» « ভাঙ্গনের কবলে মুন্সীগঞ্জ বাজার রোড» « মরহুম চেয়ারম্যান মোশাররফের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া» « জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের পুরস্কার বিতরণকালে বিভাগীয় কমিশনার ॥ শিক্ষার্থীরা আগামীতে বিশ্বকে প্রতিনিধিত্ব করবে» « কুয়েটকে বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করতে চাই ॥ কুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন

ইছামতির ভয়াবহ ভাঙ্গন (শেষ) \ দেবহাটা সীমান্ত পারের গ্রামগুলো হুমকির মুখে

10 10 Debhata Nodi Vanon

দেবহাটা অফিস \ বাংলাদেশ ভারত বিভক্তকরণ ইছামতির ভাঙ্গন থেমে নেই, যুগযুগ ধরে, বছরের পর বছর সীমান্ত নদী ইছামতির আগ্রাসী তাণ্ডবে বার বার সহায় সম্পদ হারিয়েছে গ্রামবাসি, বসত বাড়ী, ফসলি জমি জমা, সরকারী খাদ্য গুদাম, ফুটবল মাঠ, চিরচেনা ভূ-খন্ড ভক্ষন করেছে ইছামতি। এই নদী দেবহাটা সীমান্ত পারের জন সাধারনের আশীর্বাদ পুষ্ট হলেও ভাঙ্গন আর ভাঙ্গন এবং খর স্রোতের কারনে অভিশপ্তের ষোলকলা পূর্ণ করেছে ইছামতি। দেশের অভ্যন্তর ভাগের নদ নদী ভাঙ্গন কবলিত হলে সহায় সম্পদ হারিয়ে গেলেও ভূ-খন্ড হারায় না, অথচ সীমান্ত নদী ভাঙ্গন হলে ভূ-খন্ড হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। ইছামতির চিরচেনা রুপ আর তার তান্ডব এর সাথে অতি পরিচিত দেবহাটা সীমান্ত পারের গ্রামগুলির হাজার হাজার জনগোষ্ঠী ইছামতী আগ্রাসী তান্ডব, রাক্ষুসে পানির অনিয়ন্ত্রীত গতিপথ গ্রামবাসিকে বার বার প্রতি মুহুর্তে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। দেবহাটা রক্ষা বাঁধের পরতে পরতে ফাটল, কেবল ফাঁটল না বিশাল বিশাল এলাকার বাঁধ নিয়ে নেমে পড়েছে নদীতে। উপজেলার ভাঙ্গন কবলিত নাংলা, নোয়াপাড়া, ছুটিপুর, খানজিয়া, বসন্তপুর, উপজেলা সদর, সুশিলগাতী, দোনপাড়া, শিবনগর, চরশ্রীপুর, টাউনশ্রীপুর, ভাতশালা, কোমরপুর, প্রভৃতি গ্রাম ভাঙ্গন কবলিত , উলে­খিত গ্রামগুলোর জনসাধারন প্রতি মুহুর্তে ভাঙ্গন আতঙ্কে আতঙ্কিত। দেবহাটা সীমান্ত পারের গ্রামগুলো ভাঙ্গনের কবল হতে রক্ষা করতে গতানুগতিক ধারায় নয় স্থায়ী পরিকল্পনা প্রনয়ন করতে হবে, যা ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী পদ্ধতি হিসেবে বিবেচিত হবে। আর এজন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে এগিয়ে আসতে হবে বর্ষা মৌসুম ভাঙ্গন কে যেন ত্বরান্বীত না করে সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

Share
[related_post themes="flat" id="261496"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com