,
সংবাদ শিরোনাম :
» « একনেকে ৪ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ইভিএম কেনার প্রকল্প অনুমোদন» « সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় দুঃস্থ পরিবার ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাঝে টিন বিতরন» « সুলতানপুর উঠান বৈঠকে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরলেন সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি» « কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের সংবাদ সম্মেলন ॥ আজ সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে জাতীয় নজরুল সম্মেলন» « সাতক্ষীরায় আদালতের নির্দেশ অমান্য করায় সাবেক ডিসি ও ইউএনও সহ তিন জনের কারাদন্ড» « পারুলিয়া ও কুলিয়ায় সমাবেশে অধ্যাপক ডাঃ আ,ফ,ম রুহুল হক এম,পি» « নজরুল ইসলামের নৌকার স্বপক্ষে পথসভা» « ভাঙ্গনের কবলে মুন্সীগঞ্জ বাজার রোড» « মরহুম চেয়ারম্যান মোশাররফের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া» « জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের পুরস্কার বিতরণকালে বিভাগীয় কমিশনার ॥ শিক্ষার্থীরা আগামীতে বিশ্বকে প্রতিনিধিত্ব করবে» « কুয়েটকে বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত করতে চাই ॥ কুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন

থামছে না সুন্দরবনের হরিণ শিকার \ মাংস বিক্রি হচ্ছে কেজি ৫ থেকে ৬ শত

15 Munsigonj Horin

শেখ সোহারাব হোসেন শ্যামনগর মুন্সীগঞ্জ থেকেঃ বাঘের লাফ বিশ হাত হরিণের লাফ একুশ হাত সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকায় এই প্রবাদ ব্যাক্যটি বহু প্রচালিত।কিন্তু বাস্তবে হলো বাঘের থাবা ও সুন্দরবনের বনদুস্যদের হাত থেকে রক্ষা পেলেও শিকারী ফাঁদ ও বন্দুকের গুলি থেকে রেহাই পাচ্ছেনা সুন্দরবনের চিত্রল হরিণ।সুন্দরবনে গহিনে সম্প্রতি বনবিভাগ কোষ্ট গার্ডে অভিযান চালিয়ে ৩টি মৃত হরিণ ৩টি একনলা লাইসেন্সধারী ৩টি বন্দুক নৌকা ও ২জন কে আটক করলেও কোন প্রকৃত শিকারীদের আটক করা হয় না । তবে শ্যামনগর থানা পুলিশের দাবী তাদের অভিযানে সুন্দরবনে কালিরচর সুবদে এলাকা থেকে ৩টি অস্ত্র সহ ৩টি মৃত হরিণ ও ২ জন কে আটক করেছে। সুন্দরবনে বনদুস্য অনেকটা কমে গেলেও হরিণ শিকরীদের এই চক্র বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।শ্যামনগর উপজেলার মুন্সীগঞ্জ, কৈখালী ইউনিয়নে ভেটখালী, মরাগাং,টেংরাখালী ,গ্রামে এলাকা গুলোতে তাই নিয়মিতো বিক্রি হচ্ছে হরিণের মাংস।দিন দিন এই প্রবণতা বাড়ছে তবে বনবিভাগের দাবী শিকরীদের বিরূদ্ধে তাদের অভিযান অব্যহত আছে ।স্থানীয়রা বলছে ভোজন বিলাসী মানুষের কাছে হরিনের মাংস ব্যাপক কদর রয়েছে এই জন্য তারা চড়া মুল্য দিতে দিধাবোধ করেন না ফলে ৫/৬শত টাকা দরে মাংস ভেটখালী যতিন্দ্রনগর,কৈখালী,টেংরাখালী সহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে কিছুু এলাকায় বিক্রি করে থাকে।হরিণচোরা শিকারী ও মাংস ব্যাবসায়ীদের তালিকা প্রসাশনের কাছে থাকলেও ঐ সকল শিকারী ও ব্যাবসা কারীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা নেওয়া হয়না।এ সকল শিকারী ও মাংস ব্যাবসায়ী বিশেষ করে বনবিভাগ সহ প্রশাসনের ম্যানেজ পাশাপাশি এড়িয়ে চলে।এদিকে সচেতন মহলের অভিযোগ বনবিভাগের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা উৎকোচের মাধ্যমে সুন্দরবনে নিষিদ্ধ অভায় অরণ্যে এলাকায় চোরা শিকারীদের জেলে বাওয়ালিদের সুযোগ করে দেওয়ায় সুন্দরবন আজ ধংসের দ্বার প্রান্তে। ৩টি মৃত হরিণ,৩টি অস্ত্রও শিকারী আটকের বিষয় সাতক্ষীরা রেঞ্জ কর্মকর্তা জি,এম রফিক আহম্মেদ সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে তিনি বলেন আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোষ্টগার্ড সদস্য নিয়ে সুন্দরবনে অভিযান চালাই এসময় একটা ট্রলার ৩টা মৃত হরিণ,৩টি বন্দুক ও২জন শিকারী শ্যামনগর থানা সশস্ত্র কয়েকজন পুলিশকে দেখতে পাই এবং তাদের কাছে জানতে চাইলে পুলিশ থানা সি,সি,দেখালে আমরা তাদের কে ছেড়ে দেই।তিনি আরও বলেন বনবিভাগের কেও কোন উৎকোচ নেয়না যদি এরকম কোন সুনিদিষ্ট প্রমান মেলে তার বিরুদ্ধে ব্যাাবস্থা নেওয়া হবে এবং আমি সকল ষ্টেশন সহ টহল ফাঁড়ী কে জোরালোা টহলের নির্দেশ দিয়েছি।এবিষয় শ্যামনগর থানা অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ মান্নান আলী কাছে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমাদের পুলিশ সুন্দরবনে বনদুস্যদের ধরার জন্য সুন্দরবনে অভিযান চালাতেযেয়ে হরিন অস্ত্র সহ ২ জন কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে আমি তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছি।

Share
[related_post themes="flat" id="261507"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com