,
সংবাদ শিরোনাম :
» « বন্ডের অপব্যবহারে রাজস্ব ক্ষতির মুখে সরকার» « সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের জের ধরে দৃষ্টিপাতের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করায় তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত» « সমাজসেবা অধিদফতর’র উদ্যোগে সেমিনার ও বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা বই বিতরণ» « ত্রিশমাইল সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত দুই» « সাতক্ষীরায় তামাক নিয়ন্ত্রণ বাস্তবায়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত» « কৃষকদের মাঝে লবন, খরা ও বন্যা সহনশীল ধান বীজ বিতরণ» « কুলিয়ায় মসজিদ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন» « রেল ও সড়ক পথের নড়বড়ে সেতু মেরামতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর» « ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত» « ইংল্যান্ডকে হারিয়ে সবার আগে সেমিতে অস্ট্রেলিয়া» « নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের জয়ের বিকল্প নেই

খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে চক্রান্ত করছে সরকার -রিজভী

এফএনএস: বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকারের চক্রান্তে ও নির্দেশে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন বারবার বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে। যেসব মিথ্যা মামলায় এর আগে অনেকেই জামিন পেয়েছেন, সেসব মামলায় আদালতকে ব্যবহার করে খালেদা জিয়ার জামিন বিলম্বিত করা হচ্ছে। গতকাল বুধবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব। রুহুল কবির রিজভী বলেন, কুমিল্লার মিথ্যা নাশকতার মামলায় বারবার তারিখ পিছিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসনকে হয়রানি করা হচ্ছে। আদালতে ন্যায়বিচার পেলে কুমিল্লায় দায়ের করা মিথ্যা নাশকতা মামলায় বিচারিক আদালতেই জামিন পেতেন খালেদা জিয়া। আদালত জামিনও দিচ্ছেন না, আবার জামিন নামঞ্জুরও করছেন না। এভাবেই তাঁর উচ্চ আদালতে যাওয়ার পথ রুদ্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। দেশবাসী মনে করে, সরকারের নির্দেশেই নিম্ন আদালতে খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে টালবাহানা করা হচ্ছে। শুধু তাঁকে হয়রানি করার জন্যই তা করা হচ্ছে। আওয়ামী সরকার জুলুমের যত পথ-পদ্ধতি আছে, সবই প্রয়োগ করছে বিএনপির চেয়ারপারসনের ওপর, বলেন রিজভী। আওয়ামী লীগ সারা দেশে ব্যাপক নির্বাচনী সহিংসতা চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন বিএনপির এই নেতা। তিনি আরো বলেন, রাষ্ট্রের সব শক্তি প্রয়োগ করে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের দমনের পর এখন হত্যা, খুন, ধর্ষণ, হামলা থেকে শুরু করে তাদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করা হচ্ছে। ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দেওয়ার অপরাধে গ্রামের মানুষকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। সরকারের নিরঙ্কুশ কর্তৃত্ব নিশ্চিত করতে একতরফা নির্বাচনের পর প্রচারমাধ্যমগুলোকে সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ ও নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে, যাতে সত্য ঘটনা প্রকাশ হতে না পারে। একদিকে হামলা-মামলা-আটক আর অন্যদিকে নিজেদের প্রচারের আতিশয্য বজায় রেখে সরকার প্রতিপক্ষদের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার বেগবান করেছে, বলেন রিজভী। বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, নির্বাচনোত্তর সহিংস সন্ত্রাসের প্রকোপে জনজীবন গভীর শঙ্কা ও উদ্বেগের মধ্যে পতিত হয়েছে। বিরামহীন সন্ত্রাসের প্রসারে দেশজুড়ে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। রুহুল কবির রিজভী আরো বলেন, দেশজুড়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের পুলিশি হয়রানি ও মামলা-হামলার পর এখন দুদককে দিয়ে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাসের বিরুদ্ধে আবারো মামলা দায়ের করেছে দুদক। মির্জা আব্বাস ও আফরোজা আব্বাসকে এখন কেন টানাহেঁচড়া শুরু করেছে- দলের পক্ষে অটুট অবস্থান নেওয়ার কারণে। যে নির্বাচন হয়েছে সেই নির্বাচনে দুইজনই প্রার্থী ছিলেন। অনেক হামলা হয়েছে তাদের ওপর। এর মধ্যেও তারা নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন- এটাই হচ্ছে তাদের অপরাধ। তাদের অপরাধ তারা মুক্তকণ্ঠে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে, গণতন্ত্রের পক্ষে কথা বলেন। যদি তারা নিশ্চুপ থাকতেন তাহলে তাদের ওপর দুদকের খড়গ নেমে আসত না। আমরা বলতে চাই, দুদক বিরোধীদল নির্যাতনের যাঁতাকল হিসেবে কাজ করছে। অবিলম্বে মির্জা আব্বাস ও আফরোজা আব্বাসের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানান রিজভী। তিনি বলেন, গত ১০ বছরে সরকারদলীয় নেতাকর্মীরা লাখ লাখ কোটি টাকা লুট করে নিলেও, সমস্ত ব্যাংক লুট হয়ে গেলেও দুদক চোখ বন্ধ করে বসে আছে। গণমাধ্যম মন্ত্রী-এমপিদের বিরুদ্ধে সাগর চুরির খবর প্রকাশ করলেও, খোদ সংসদে দাঁড়িয়ে সরকারের মন্ত্রীরা সাগর চুরির কথা বললেও দুদক একেবারে পাথরের মূর্তির মতো চুপচাপ বসে থেকেছে। সংবাদ সম্মেলনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, আহমেদ আজম খান, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মুনির হোসেন, রবিউল ইসলাম রবি, আমিনুল ইসলাম, শাহজাহান মিয়া স¤্রাট প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Share
[related_post themes="flat" id="283124"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com