,
সংবাদ শিরোনাম :
» « ভারতে কোচিং সেন্টারে আগুন ॥ ১৯ শিক্ষার্থীর প্রাণহানি» « র‌্যাবের হাতে প্রাথমিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রের ৫ সদস্য ও ১৬ পরীক্ষার্থী আটক ॥ ভ্রাম্যমান আদালতে সকলকে দুই বছরের কারাদন্ড» « সাতক্ষীরায় দরিদ্র এতিম শিশুদের নিয়ে রোটারী ক্লাবের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত» « সাতক্ষীরা শহরের পাসপোর্ট অফিস সড়কে বিপদজনক লোহারপাতি! কর্তৃপক্ষ দেখবেন কি?» « পারুলিয়ার কদবেল তলা সূবর্ণবাদ সড়ক জনভোগান্তীর কারনে পরিনত হয়েছে» « জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ১২০তম জন্মবার্ষিকী আজ» « বিদ্যুৎ স্পর্শ হয়ে ইলেকট্রিক মিস্ত্রির মৃত্যু» « খালেদা জিয়াকে বিনা চিকিৎসায় মেরে ফেলার মতো এত অমানবিক নয় সরকার -কাদের» « সৈয়দ কামাল বখত সাকির ২০তম মৃত্যু বার্ষিকীতে স্মৃতিচারণ মিলাদ ও ইফতার মাহফিল» « ফিংড়ী যুবলীগের উদ্যোগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত» « কদমতলা বাজার কমিটির সেক্রেটারী মেহেদী আর নেই

আবারও অন্যান্যের দৈন্য তামিম শৌর্যের পাশে

01-

এফএনএস স্পোর্টস: পেছনে ছিল প্রথম ইনিংসের ভুল। সামনে সেই ভুল শোধরানোর চ্যালেঞ্জ। কিন্তু চ্যালেঞ্জ নেওয়ার পথে হাঁটলেন না তাদের কেউ। বাংলাদেশের ইনিংসও তাই হাঁটল পেছন পানে। আরও একবার জ¦লে উঠলেন কেবল তামিম ইকবাল। আবারও উইকেট বিলিয়ে এলেন অন্যরা। বাংলাদেশকে তাই চোখ রাঙাচ্ছে ইনিংস পরাজয়। প্রথম ইনিংসের চেয়ে দুটি ব্যতিক্রম অবশ্য আছে। একটি হতাশার, আরেকটি আশার। সম্ভাবনা জাগিয়েও এবার সেঞ্চুরি পাননি তামিম। তবে লড়াই করে টিকে আছেন সৌম্য সরকার। ইনিংস হার এড়ানো অবশ্য এখনও অনেক দূর। সেখানে পৌঁছতে চাই আরও ৩০৭ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ১৭৪ রান নিয়ে বাংলাদেশ হ্যামিল্টন টেস্টের তৃতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। নিউ জিল্যান্ড প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে নিজেদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ ৬ উইকেটে ৭১৫ রানে। প্রথম ইনিংসে ১২৬ রানের পর এবার তামিম করেছেন ১২ চার ও ১ ছক্কায় ৮৬ বলে ৭৪। কয়েকটি দারুণ শট, কিছু অস্বস্তিকর সময় কাটিয়ে সৌম্য দিন শেষ করতে পেরেছেন ৩৯ রানে অপরাজিত থেকে। ৪৮১ রানে পিছিয়ে থেকে বাংলাদেশ শুরু করেছিল দ্বিতীয় ইনিংস। কিন্তু সেই চাপের কোনো ছাপ ছিল না তামিমের ব্যাটে। শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলেছেন। সাদমান ইসলামকে নিয়ে আবারও দলকে এনে দেন ভালো শুরু। তামিমের ব্যাটিং থেকে আত্মবিশ্বাস পেয়েছিলেন হয়তো সাদমানও। তরুণ বাঁহাতি ওপেনার খেলছিলেন স্বচ্ছন্দে। কিন্তু সাদমানকে দিয়েই শুরু উইকেট বিলিয়ে আসার। নিল ওয়েগনার অনুমিতভাবেই শর্ট বল করে গেছেন। অফ স্টাম্পের বাইরে থেকে পুল করতে গিয়ে সাদমান আউট হন ৩৭ রানে। উদ্বোধনী জুটি থামে ৮৮ রানে। হতাশার শুরু সেই থেকে। ট্রেন্ট বোল্টকে দারুণ দুটি ফ্লিকে বাউন্ডারি মেরেছিলেন মুমিনুল হক। পরের বলেই অনেক বাইরের বল কাট করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ধরা। বোল্টের পরের ওভারেই অনেক বাইরের বলে ব্যাট চালিয়ে আউট মোহাম্মদ মিঠুন। ভুল থেকে না শেখার দায় শেষ পর্যন্ত কিছুটা নিতে হচ্ছে তামিমকেও। কিউইদের পেস আক্রমণেক পাত্তা না দিয়ে যথারীতি খেলেছেন দারুণ সব শট। তবে বাউন্সারে ‘ডাক’ করার ক্ষেত্রে বারবার হচ্ছিলেন অসাবধানী। প্রথম ইনিংসে একবার ব্যাট শরীরের ওপর উঁচিয়ে রেখে বেঁচে গিয়েছিলেন, দ্বিতীয় ইনিংসেও একটুর জন্য রক্ষা পেয়েছেন। কিন্তু সেটিই কাল হয়েছে শেষ পর্যন্ত। টিম সাউদির বলে জায়গা বানিয়ে খেলতে চেয়েছিলেন তামিম। সাউদি সেটি দেখে শরীর সোজা ঠুকে দেন। তামিম ‘ডাক’ করতে গিয়ে পড়ে যান উইকেট, কিন্তু ব্যাট উঁচিয়ে রাখেন ওপরেই। সেখানে লেগে বল যায় কিপারের গ্লাভসে। আরেকটি বড় ধাক্কা থেকে বাংলাদেশ রক্ষা পায় সৌভাগ্যের ছোঁয়ায়। প্রথম বলেই বেঁচে যান মাহমুদউল্লাহ। ব্যাটে বল লাগার আওয়াজ পাওয়া যায় স্পষ্ট, রিয়েল টাইম স্নিকোতে স্পাইকও ধরা পড়ে। তবে বল ব্যাটে লাগার আর স্পাইক একসঙ্গেই কিনা, সেটি নিশ্চিত হতে না পেরে আউট দেননি তৃতীয় আম্পায়ার। ধারাভাষ্যকাররা যদিও বারবার বলছিলেন, এটি আউট না হওয়ার কারণ নেই। টিকে গিয়ে মাহমুদউল্লাহ আর সৌম্য লড়াই করেছেন। দিন শেষে দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটির রান ৪৮। তাদের সামনে, দলের সামনে এখনও অনেক বন্ধুর পথ। সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২৩৪ নিউ জিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ১৬৩ ওভারে ৭১৫/৬ (ডি.) বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ৪৩ ওভারে ১৭৪/৪ (তামিম ৭৬, সাদমান ৩৭, মুমিনুল ৮, মিঠুন ০, সৌম্য ৩৯*, মাহমুদউল্লাহ ১১*; বোল্ট ১১-১-৫৩-২, সাউদি ১৩-২-৫৪-১, ডি গ্র্যান্ডহোম ৫-১-১৫-০, ওয়েগনার ১২-১-৪৮-১, অ্যাস্টল ২-১-৪-০)।

Share
[related_post themes="flat" id="286626"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com