,
সংবাদ শিরোনাম :
» « ভারতে কোচিং সেন্টারে আগুন ॥ ১৯ শিক্ষার্থীর প্রাণহানি» « র‌্যাবের হাতে প্রাথমিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রের ৫ সদস্য ও ১৬ পরীক্ষার্থী আটক ॥ ভ্রাম্যমান আদালতে সকলকে দুই বছরের কারাদন্ড» « সাতক্ষীরায় দরিদ্র এতিম শিশুদের নিয়ে রোটারী ক্লাবের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত» « সাতক্ষীরা শহরের পাসপোর্ট অফিস সড়কে বিপদজনক লোহারপাতি! কর্তৃপক্ষ দেখবেন কি?» « পারুলিয়ার কদবেল তলা সূবর্ণবাদ সড়ক জনভোগান্তীর কারনে পরিনত হয়েছে» « জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ১২০তম জন্মবার্ষিকী আজ» « বিদ্যুৎ স্পর্শ হয়ে ইলেকট্রিক মিস্ত্রির মৃত্যু» « খালেদা জিয়াকে বিনা চিকিৎসায় মেরে ফেলার মতো এত অমানবিক নয় সরকার -কাদের» « সৈয়দ কামাল বখত সাকির ২০তম মৃত্যু বার্ষিকীতে স্মৃতিচারণ মিলাদ ও ইফতার মাহফিল» « ফিংড়ী যুবলীগের উদ্যোগে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত» « কদমতলা বাজার কমিটির সেক্রেটারী মেহেদী আর নেই

আশাশুনির বিভিন্ন বাজারে ভারতীয় কেমিক্যালযুক্ত নিম্নমানের চায়ে সয়লাব

03 Asasuni Cha

এম এম নুর আলম ॥ বাঙ্গালির প্রত্যাহিক জীবনে চা একটি অন্যতম অপরিহার্য পানীয়। ঘুম থেকে উঠেই সবখানেই চায়ের এক আলাদা কদর। চা ছাড়া যেন কেউ চলতেই পারেন না। চায়ের চাহিদা বাড়লেও চায়ের মান উন্নয়ন নিয়ে কারো মাথা ব্যথা নেই। নি¤œমানের ভারতীয় কেমিক্যালযুক্ত চায়ে আশাশুনি উপজেলার বিভিন্ন বাজার সয়লাব হয়ে গেছে। চোরাইপথে আসা ভারতীয় চায়ের জমজমাট ব্যবসা চলছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়। সরেজমিন ঘূরে দেখা গেছে, আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা, গোলায়ডাঙ্গা, তেতুলিয়া, কাদাকাটি, গুনাকরকাটি, মহেশ্বকাটি, হাড়িভাঙ্গা বাজারসহ উপজেলা বিভিন্ন বাজারের মুদি দোকানগুলোতে আইন-কানুনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মুদি দোকানীরা ভারতীয় কেমিক্যালযুক্ত এসকল নি¤œমানের চা প্যাকেট হরহামেশা বিক্রি করছে। দেশী চায়ের তুলনায় দাম অনেক কম হওয়ায় দোকানদারেরা বেশী লাভের আশায় ভারতীয় চা বিক্রি করছেন। এতে দেশী কোম্পানির চা বিক্রি যেমন কমে গেছে তেমনি ভারতীয় নি¤œমানের চা পান করে জনসাধারণ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন বলে মনে করেছেন স্বাস্থ্য বিশেজ্ঞরা। জানাগেছে, আশাশুনির চায়ের বাজার দখল করেছে ভারতীয় কেমিক্যালযুক্ত নি¤œমানের বাঘ মার্কা চা, মহারাণী চা, ভিআইপি চা, সুরমা চা ও ইন্ডিয়া গেট চা। এসকল ভারতীয় চা দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে দেশের চা শিল্প ধ্বংস করতে মরিয়া হয়ে পড়েছে একটি চক্র। বাংলাদেশ সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এবং বিএসটিআই এর অনুমোদন বিহীন এসব চায়ের গুণগত মান নির্ণয় ছাড়াই হরহামেশা বাজারজাত হচ্ছে। বাজারে এসকল ভারতীয় পন্য সহজলভ্য হওয়ায় এবং অধিক লাভের আশায় চা দোকানিরা হরহামেশায় এসব চা তুলে দিচ্ছেন চা সেবীদের হাতে। এব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর জিএম গোলাম মোস্তফা বলেন, বিষয়টি জানা ছিলো না, তবে অতিদ্রুত সংশ্লিষ্ট বাজার থেকে এসকল ভারতীয় পন্য অপসারণ এবং বিক্রেতার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল জানান, বাজার মনিটারিং, সহ বিভিন্ন স্থানে অনিয়ম ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত ভ্রাম্যমান আদালতে অভিযান অব্যহত আছে। অতিদ্রুত এসকল অবৈধ পন্য বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share
[related_post themes="flat" id="287060"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com