,
সংবাদ শিরোনাম :
» « বন্ডের অপব্যবহারে রাজস্ব ক্ষতির মুখে সরকার» « সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের জের ধরে দৃষ্টিপাতের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করায় তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত» « সমাজসেবা অধিদফতর’র উদ্যোগে সেমিনার ও বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা বই বিতরণ» « ত্রিশমাইল সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত দুই» « সাতক্ষীরায় তামাক নিয়ন্ত্রণ বাস্তবায়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত» « কৃষকদের মাঝে লবন, খরা ও বন্যা সহনশীল ধান বীজ বিতরণ» « কুলিয়ায় মসজিদ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন» « রেল ও সড়ক পথের নড়বড়ে সেতু মেরামতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর» « ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত» « ইংল্যান্ডকে হারিয়ে সবার আগে সেমিতে অস্ট্রেলিয়া» « নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের জয়ের বিকল্প নেই

৫৪৩-এ ১০০ আসনও পাবে না বিজেপি ॥ কার্শিয়াঙে তোপ মমতার

momota

এফএনএস : পাহাড়ের দাবিদাওয়াকে বিজেপি কখনওই গুরুত্ব দেয়নি, বলেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্যেও উঠে এল প্রাক্তন সেনাকর্তাদের রাষ্ট্রপতিকে লেখা চিঠির প্রসঙ্গ। শুক্রবার কার্শিয়াঙে নির্বাচনী জনসভায় তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘‘সেনার কৃতিত্বকে নিজেদের বলে জাহির করছেন নরেন্দ্র মোদী। রাজনৈতিক স্বার্থে সেনার শৌর্যকে ব্যবহার করছেন। তার প্রতিবাদে প্রাক্তন সেনা কর্তারা চিঠি লিখেছেন রাষ্ট্রপতিকে। আমি তাঁদের পাশে আছি।’’ কেন্দ্রে সরকার গঠনে তৃণমূলের বড় ভূমিকা থাকবে এবং বিজেপি ১০০ আসনও পাবে না বলে দাবি করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। এ দিন তৃণমূল নেত্রী হিসেব দিয়ে দাবি করেছেন, বিজেপি এ বার কেন্দ্রে সরকার গঠন করা দূরে থাক, ১০০ আসনও পাবে না। উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, বিহার, ওড়িশার হিসাব দেখিয়ে তিনি বলেন, বিজেপি এই সব রাজ্যে অনেক কম আসন পাবে। উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিতে নাগরিকপঞ্জীর জন্য কেউ ভোট দেবেন না বিজেপিকে। আর কেন্দ্রে সরকার গঠনে তৃণমূলের বড় ভূমিকা থাকবে বলেও দাবি করেন মমতা। তাঁর বক্তব্য, ‘‘কেন্দ্রে আমরাই সরকার গঠন করব। কে প্রধানমন্ত্রী হবেন, সেটা পরে ঠিক করা হবে।’’ এর পাশাপাশি বিজেপির ২০১৪ সালের প্রতিশ্রুতি এবং সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ হয়নি বলে অভিযোগ তোলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মমতা বলেন, ২০১৪ সালে মোদী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ‘‘আম জনতার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৫ লাখ টাকা দেওয়ার কথা বলেছিলেন। কিন্তু সেই টাকা দিতে পারেননি।’’ পাহাড়ের দাবিদাওয়াকে বিজেপি কখনওই গুরুত্ব দেয়নি, বলেন মমতা। এর পাশাপাশি দার্জিলিং কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী অমর সিংহ রাই। কংগ্রেসের প্রার্থী শঙ্কর মালাকার। বিজেপি প্রার্থী করেছে রাজু বিস্তাকে। দ্বিতীয় দফায় ১৮ এপ্রিল রাজ্যে রায়গঞ্জ, জলপাইগুড়ি এবং দার্জিলিং আসনে ভোটগ্রহণ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য : *দু’নম্বর ইভিএম-এ ভোট দেবেন না। * কিন্তু এক নম্বর মেশিনে এক নম্বরেই আমাদের প্রার্থী অমর সিংহ রাইয়ের নাম আছে। * দ্বিতীয় ইভিএম-এ থাকবে নোটা, ওটাতে ভোট দেবেন না। * দু’টো ইভিএম থাকবে, একটিতে ১৬ জনের নাম থাকবে। * দার্জিলিং, কার্শিয়াং কালিম্পঙের উন্নয়নের জন্য আমরা সব সময় কাজ করব। * আপনারা এগিয়ে চলুন, আমরা সঙ্গে আছি। * কে প্রধানমন্ত্রী হবে, কে কি হবে, সে সব পরে ঠিক করব। * আমরা মিলেমিশে সরকার গড়ব। * তাহলে কোথায় পাবে? ৫৪৩ আসনে ১০০ আসনও পাবে না। * উত্তর-পূর্বে এনআরসির জন্য কেউ ভোট দেবে না। * কর্নাটক, তামিলনাড়ু, ওড়িশা, অন্ধ্রপ্রদেশ কোথাও মানুষ বিজেপিকে ভোট দেবে না। * বাংলায় জিরো হয়ে যাবে। * বিজেপি কী ভাবে জিতবে? উত্তরপ্রদেশে ৭৩টা আসন ছিল, এবার অর্ধেকও পাবে না। * সিটিজেনশিপ বিলে কী আছে? পাঁচ বছরের জন্য প্রথমে আপনাদের বিদেশি বানিয়ে দেবে, তার পর কী হবে, কেউ জানে না। * আমরা নাগরিকপঞ্জি কিছুতেই করতে দেব না। * অসমে বাঙালিদের তাড়ানোর চক্রান্ত হচ্ছে। * কার্শিয়াঙে কার পার্কিং হয়েছে, আপনারা আরও পরিকল্পনা করুন, আমরা সব রকম সাহায্য করব। * এখনকার কথা বলেন না, বলছেন ২০৪৭ সালে পাবেন, স্বাধীনতার ১০০ বছর পূর্তিতে। * নোটবন্দি করে দেশের মানুষের টাকা লুটে নিয়েছেন। * চৌকিদার চোর হ্যায়, চৌকিদার চুরি করেছে। * সেই টাকা পাওয়া গিয়েছে? যায়নি। * নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, ক্ষমতায় এলে ১৫ লাখ টাকা দেওয়া হবে। * আমরা এরকম নই যে, যা বলছি, তা ভুলে যাব। * কিন্তু সেনাবাহিনী সব সময় থাকবে, তাঁরা আমাদের দেশের গর্ব। * মোদী আসবেন, অমিত শাহ আসবেন চলে যাবেন। * সেনার নামে যা হচ্ছে, তা নিন্দনীয়। * সেনার জন্য ভোট দিন, এটা আমরা কখনও বলিনি। * এখানকার যুবক-যুবতীরা পড়াশোনা করতে পারবেন, বাইরের প্রচুর যুবক-যুবতীও পড়তে আসবেন। * কার্শিয়াঙে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস তৈরি করার কাজ শুরু হয়েছে। * আপনাদের বাইরে যাওয়ার দরকার নেই। * আমি বলেছি, আপনাদের ইউনিভার্সিটি আমরা করে দেব। * পাহাড়র মানুষ, আপনারা কতদিন ধরে দাবি করেছেন, একটা কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় চাই। * পাহাড়ের দাবিদাওয়াকে বিজেপি কখনওই গুরুত্ব দেয়নি। * গতকাল দার্জিলিঙে দেখেছি, প্রচুর পর্যটক এসেছেন। * পাহাড়ের প্রচুর উন্নয়ন হয়েছে, প্রচুর পর্যটক আসছেন।

Share
[related_post themes="flat" id="288177"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com