,
সংবাদ শিরোনাম :
» « বন্ডের অপব্যবহারে রাজস্ব ক্ষতির মুখে সরকার» « সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের জের ধরে দৃষ্টিপাতের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করায় তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত» « সমাজসেবা অধিদফতর’র উদ্যোগে সেমিনার ও বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা বই বিতরণ» « ত্রিশমাইল সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত দুই» « সাতক্ষীরায় তামাক নিয়ন্ত্রণ বাস্তবায়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত» « কৃষকদের মাঝে লবন, খরা ও বন্যা সহনশীল ধান বীজ বিতরণ» « কুলিয়ায় মসজিদ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন» « রেল ও সড়ক পথের নড়বড়ে সেতু মেরামতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর» « ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত» « ইংল্যান্ডকে হারিয়ে সবার আগে সেমিতে অস্ট্রেলিয়া» « নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাকিস্তানের জয়ের বিকল্প নেই

রমজান সমাগত ॥ বাজার ব্যবস্থা স্থিতিশীল রাখতে মনিটরিং ব্যবস্থা অপরিহার্য

bazar

দৃষ্টিপাত রিপোর্ট ॥ সামনে রমজান মাস আর রমজান মাসকে সামনে রেখে এক শ্রেণীর ব্যবসায়ীরা বাজার ব্যবস্থাকে অস্থিতিশীল করার অনৈতিক প্রয়াস চালিয়ে থাকেন। বর্তমান বাজার ব্যবস্থা স্থিতিশীল বিশেষ করে মুদি সামগ্রী আকাশচুম্বী নয়, ভোজ্য তেল, চিনি, ছোলা, আটা, ময়দা, সহ অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর মূল্য স্থিতিশীল মুদী সামগ্রী ঝাল, পেয়াজ, রসুন, লবন, হলুদ সহ মসলা বাজারও মোটামুটি শান্ত। সবজির বাজারে অবশ্য মুল্য বৃদ্ধির পাগলা ঘোড়া ছুটছে তো ছুটছেই বর্তমান মৌসুমে সবজির মৌসুম যেমন নয় অনুরুপ ভাবে বিগত সময়ে অসময়ে ঝড়, বৃষ্টি, শিলা বৃষ্টির কারনে সবজি উৎপাদনে মারাত্মক বিপর্যয় ডেকে এনেছে যে কারনে বাজারে সবজির সরবরাহ অনেকটা কম ফলে চাহিদা অপেক্ষা যোগান কম থাকায় মুল্য বৃদ্ধির অসম প্রতিযোগিতা চলছে এবং মুল্য বৃদ্ধির অনাকাঙ্খিত প্রতিযোগিতায় অবশ্য এক শ্রেণীর অসাধু সবজি ব্যবসায়ীদের কারসাজির বিষয়টি আলোচিত হচ্ছে। সবজির বাজারে আগুন ছোয়া মুল্যের কারনে সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের কারসাজির বিষয়টি বারবার আলোচিত হচ্ছে। সাতক্ষীরার বাস্তবতায় স্থানীয় ভাবে উৎপাদিত সবজি এবং যশোর খুলনা সহ উত্তরবঙ্গ হতে আগত সবজির বাজার বিভিন্ন পণ্য ভিন্ন ভিন্ন সিন্ডিকেট দ্বারা পরিচালিত। অবিলম্বে সবজি বাজারের মূল্য বৃদ্ধির কারন অনুসন্ধান এবং সিন্ডিকেট তথা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে এবং আগত রমজান কে পুঁজি করে মুদি সামগ্রী সহ নিজ পণ্যের মুল্য বৃদ্ধির প্রতিযোগিতায় কথিত ব্যবসায়ীরা যেন নামতে না পারে এবং কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে মুল্য বৃদ্ধির পাগলা ঘোড়ার উপস্থিতি ঘটাতে না পারে সে বিষয়ে বাজারে বাজারে মনিটরিং ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে। দীর্ঘ দিন যাবৎ বাজারে গরুর মাংসের মুল্য বৃদ্ধির প্রতিযোগিতা শুরুর বিষয়টি বিশেষ ভাবে লক্ষনীয়, গরুর মাংসের পাশাপাশি খাসির মাংসের ও মুল্য বৃদ্ধির প্রতিযোগিতা থেমে নেই। দেশী মূরগি যেন সোনার হরিন প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে দেশী মুরগির মুল্য। এখানেই শেষ নয় দেশী মুরগী বলে অবলিলায় বিক্রি হচ্ছে সোনালী মুরগী সহ ফার্মে উৎপাদিত বিভিন্ন ধরনের মুরগি, কয়দিন পূর্বোত্ত দেশী মুরগীর মুল্য ছিল কেজি প্রতি দুইশত পঞ্চাশ টাকা হতে দুইশত আশি কিন্তু বর্তমান সময়ে দেশী মুরগীর মুল্য কেজি প্রতি তিনশত পঞ্চাশ টাকা এক্ষেত্রে প্রতারিত হওয়ার যথেষ্ট সুযোগ বিদ্যমান। এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা সোনালী মুরগি, দেশী মুরগি বলে অবলিলায় বিক্রি করছে। মাছের বাজারের পাগলা ঘোড়া প্রতিনিয়ত ছুটে চলেছে। সাতক্ষীরার হাটবাজার গুলোতে দৃশ্যতঃ মাছের উপস্থিতি যৎসামান্য আর মাছের উপস্থিতি কম থাকায় মুল্য স্বাভাবিকতা ছাড়িয়ে অস্বাভাবিকতায় পূর্ণতা পেয়েছে। দেশী প্রজাতির মাছ বাজারে নেই বল্লেও চলে। বর্তমান সময়ে মাছের যোগান যৎসামান্য থাকায় মুল্য বৃদ্ধির প্রতিযোগিতা থেমে নেই। চাষী কই, মাগুর সহ বিভন্ন ধরনের চাষ নির্ভর মাছের উপস্থিতি সর্বাধিক। আমাদের দেশের বাজার ব্যবস্থায় বরাবরই সিন্ডিকেট এবং মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের অবস্থান, সক্রীয়তা ও দৌরাত্ব থাকে। সামনের রমজান মাসকে পূজি করে, সিন্ডিকেট চক্র যেন সক্রীয় না হতে পারে এবং ক্রেতাসাধারনকে জিম্মি করে, পণ্য সামগ্রীর কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে মুল্য বৃদ্ধির অশুভ প্রতিযোগিতা সর্বপরি বাজার ব্যবস্থায় অর্থনৈতিক হস্তক্ষেপ করতে না পারে সে বিষয়ে কর্তৃপক্ষের তদারকি এবং মনিটরিং অপরিহার্য।

Share
[related_post themes="flat" id="288193"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com