,
সংবাদ শিরোনাম :
» « সব পর্যায়ে বাড়লো বিদ্যুতের দাম» « জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সভায় জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান ॥ আইন সবার জন্য সমান» « জেলা পর্যায়ে শুদ্ধস্বরে জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতা ॥ পিএন বিয়াম, সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও তালা মহিলা কলেজ শীর্ষে» « নতুন জীবনে সাতক্ষীরার সৌম্য: খুলনা ক্লাব ছিল আলোকিত» « সপ্তাহব্যাপী আঞ্চলিক এসএমই পণ্য মেলা শুরু ২৯ ফেব্র“য়ারি» « বৈদেশিক কর্মসংস্থানের জন্য দক্ষতা ও সচেতনতা শীর্ষক সেমিনার» « কৃষিতে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ» « মশা যেন ভোট না খেয়ে ফেলে, ঢাকার নতুন মেয়রদের প্রধানমন্ত্রী» « দেবহাটা রুপসী ম্যানগ্রোভ পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক» « পূর্ব জোনের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলেন আশাশুনির ওসি» « ভয়ঙ্কর যত রেল দুর্ঘটনা ॥ বিহারের ট্রেন দুর্ঘটনা [ভারত], মৃতের সংখ্যা : ৮০০

গরমে আদর্শ ইফতারের প্লেট

এফএনএস : এ বছর রোজা একেবারে বৈশাখ মাসে শুরু হলো। গ্রীষ্মের তেজও এ বছর যেন বেশি। তাই এবার রমজানে রোজাদারদের পানিশূন্যতা, লবণশূন্যতা ও বদহজম যেন না হয়, সেদিকে নজর দিতে হবে বেশি। পানি আর পানীয় : ইফতার থেকে সাহ্রি পর্যন্ত দুই থেকে আড়াই লিটার পানি পান করে ফেলতে হবে। ইফতারে রোজা ভাঙার সময় আমরা শরবত পছন্দ করি। লেবু, তোকমা, তেঁতুল, টকদই, দুধ, বেল, কাঁচা আম, ইসবগুলের ভুসি ইত্যাদি উপকরণ দিয়ে শরবত তৈরি করা যায়। ডায়াবেটিসের রোগীরা চিনি না দিয়ে বিকল্প চিনি ব্যবহার করতে পারেন বা ডাবের পানি পান করতে পারেন। পানিশূন্যতা রোধে খাবার : ইফতারে ভেজানো চিড়া দিয়ে দই-কলা, শসার রায়তা, নানা রকমের ফল পানিশূন্যতা রোধ করবে। দুধ-মুড়ি, নরম খিচুড়িও ভালো খাবার। ঐতিহ্যবাহী ইফতারি যেমন পেঁয়াজি, বেগুনি, কাটলেট, চপ, কাবাব, জিলাপি, তেহারি ইত্যাদি যেমন ক্যালরিবহুল, তেমনি এই গরমে অস্বস্তিকর হতে পারে। তেল কমানোর জন্য কাঁচা ছোলা বা সেদ্ধ ছোলার সঙ্গে শসা, পেঁয়াজ, টমেটো, আদা কুচি, পুদিনা মিশিয়ে সালাদের মতো করে খেতে পারেন। চটপটিও তেলবিহীন। ইফতারের প্লেটে একটি বা দুটি তেলে ভাজা খাবার রাখুন, তবে তেল যেন বহু ব্যবহৃত না হয়। চাই ফলমূল : রমজানে শাকসবজি তেমন খাওয়ার সুযোগ হয় না। তাই তাজা ফল বেশি খাওয়া ভালো। এতে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়, আঁশের চাহিদা মেটে, মেলে প্রচুর পটাশিয়াম, খনিজ, ভিটামিন। খেজুরে উচ্চ মাত্রার আয়রন, শর্করা, ক্যালসিয়াম আছে, কিন্তু এতে ক্যালরিও অনেক। বড়জোর দুটি খেজুর রাখুন প্লেটে। একটি আদর্শ ইফতারের প্লেট : এক গ্লাস শরবত বা ডাবের পানি। হালকা তেলে ভাজা বা সেদ্ধ বা কাঁচা ছোলা আধা কাপ, মুড়ি মাখানো হলে পৌনে এক কাপ, দুটি খেজুর, পেঁয়াজি/ আলুর চপ/ পাকোড়া/ কাবাবযেকোনো দুটি আইটেম থেকে দুটি করে। যেদিন হালিম থাকবে সেদিন বেসন বা ডালের তৈরি খাবার বাদ দিন। ফল নিন ইচ্ছামতো (মাল্টা, পেয়ারা, চাঁপা কলা, তরমুজ, বাঙ্গি, আনারস)। শসার রায়তা/টকদই দুই চা-চামচ থাকতে পারে। প্রধান পুষ্টিবিদ, বারডেম হাসপাতাল।

Share
[related_post themes="flat" id="290790"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com