,
সংবাদ শিরোনাম :
» « দুর্গম এলাকাকে অগ্রাধিকার দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার উদ্যোগ» « সাতক্ষীরা ডিজিটাল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের স্বাস্থ্য সেবায় এগিয়ে চলা এবং অত্যাধুনিক মেশিনের উপস্থিতি (এক)» « সাতক্ষীরার ফিংড়ী কুঁচে চাষ প্রকল্প উদ্বোধন করলেন এমপি রবি» « জোড়া সেঞ্চুরিতে সেমির আগে ভারতের বড় জয়» « তেলবাহী ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে কলেজ প্রভাষিকা নিহত: আহত-১, গ্রেফতার-২» « শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের পৌর আট নং ওয়ার্ড কমিটি গঠন» « কাকবাসিয়ায় খেয়াঘাট না থাকায় পারাপারে ভোগান্তি» « চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী» « যশোর র‌্যাবের পৃথক অভিযানে ২২৮ পিচ ইয়াবা সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক» « সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজ আইডিজি এর জন্য মনোনীত» « বাজার ব্যবস্থা অস্থিতিশীল এবং মসলা বাজারে আগুন

ই-বর্জ্য থেকে মূল্যবান ধাতু উদ্ধার করে তা পুনর্ব্যবহার করার উদ্যোগ

এফএনএস : সরকার ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে। তার মাধ্যমে ই-বর্জ্য থেকে মূল্যবান ধাতু উদ্ধার করে তা পুনর্ব্যবহার করা হবে। ওই লক্ষ্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) ইতিমধ্যে লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং সেক্টরের উন্নয়ন ও ই-ওয়েস্ট প্রক্রিয়াকরণের সুবিধাদি সৃষ্টি বিষয়ে একটি প্রকল্প প্রস্তাব প্রণয়ন করেছে। আর ওই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে এ খাতের ৪০ হাজার ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সুবিধাভোগী হবে। প্রকল্পটির আওতায় হালকা ও মাঝারি প্রকৌশল খাত উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়ার পাশাপাশি কেন্দ্রীয়ভাবে ই-বর্জ্য নিয়ে একটি গবেষণাগার স্থাপন করা হবে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এই তথ্য জানা যায়। সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশে প্রতি বছর প্রায় ৩২ কোটি টন ইলেকট্রনিক পণ্য ব্যবহৃত হয়। তবে ওসব পণ্যের মাত্র ২০-৩০ শতাংশ রি-সাইকেল বা পুনর্ব্যবহার উপযোগী করা হয়। আর বাকিটা অপ্রাতিষ্ঠানিকভাবে ভেঙে ফেলা হয় অথবা ফেলে দেয়া হয়। দেশে কম্পিউটার, সেলফোন, টেলিভিশন, রেফ্রিজারেটর, ফটোকপি, ওয়াশিং মেশিন, এয়ারকন্ডিশন, ডিভিডি প্লেয়ার, সিএসএফ বাল্ব প্রভৃতি ইলেকট্রনিক পণ্য অধিক পরিমাণে ব্যবহৃত হয়। ওসব ইলেকট্রনিক পণ্যে এক হাজারেরও বেশি ধরনের বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য থাকে। ওসবের মধ্যে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকারক লেড, মার্কারি, জিংক, ক্রোমিয়াম, ক্যাডমিয়াম, বেরিল্লিয়ামসহ বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্যের উপস্থিতি রয়েছে। সূত্র জানায়, সঠিকভাবে ই-বর্জ্য প্রক্রিয়াজাত করা গেলে তা মেটাল ও অ্যালয়ের ভালো উৎস হতে পারে। যেমন কম্পিউটার হার্ডডিস্কের অন্যতম উপাদান অ্যালুমিনিয়াম ও স্টেইনলেস স্টিল। তাই হার্ডডিস্ক হতে পারে এ দুটি উপাদানের ভালো উৎস। ড্রাইসেল ব্যাটারিতে পরিত্যক্ত অবস্থায় ১৬ দশমিক ৯৮ শতাংশ জিংক পাওয়া যায়, যা জিংকের ভালো একটি উৎস হতে পারে। মোবাইল ফোনের ব্যাটারি ও ল্যাপটপে লিথিয়াম আয়ন প্রচুর পরিমাণে ব্যবহৃত হয়। সেগুলো থেকে লিথিয়াম সল্ট প্রস্তুত করা সম্ভব। বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় সাড়ে তিন কোটি মোবাইল সেট আমদানি করা হয়। ওসব সেটের প্রিন্টেড সার্কিট বোর্ডের (পিসিবি) জন্য সঠিক রি-সাইক্লিং প্রক্রিয়ার উন্নয়ন করা গেলে উচ্চমূল্যের ধাতব বস্তু বের করে আনা সম্ভব। সূত্র আরো জানায়, দেশের ই-বর্জ্যে থাকা পদার্থের মূল্য প্রায় ৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন ইউরো, টাকার অংকে যার পরিমাণ ৩১ হাজার ৪০০ কোটি। শহরে ধাতব ব্যবস্থাপনা বা আরবান মাইনিংয়ে মাধ্যমে মূল্যবান বস্তু আহরণ ও পরিবেশ রক্ষা করা সম্ভব। বর্তমানে ব্যক্তি উদ্যোগে স্বল্প আকারে ই-বর্জ্য সংগ্রহ, চূর্ণীকরণ ও বাছাই করা হচ্ছে। কিন্তু প্রয়োজনীয় গবেষণার অভাবে ব্যাপক আকারে মূল্য সংযোজন করা যাচ্ছে না। ফলে বাছাই করা বর্জ্য নামমাত্র মূল্যে সিঙ্গাপুর, চীন ও ভারতে রফতানি হচ্ছে। এ অবস্থায় প্রকল্পটির আওতায় ই-বর্জ্য নিয়ে গবেষণাগার স্থাপন করা হবে। আর প্রস্তাবিত প্রকল্পের আওতায় ভারী শিল্পাঞ্চল চট্টগ্রামে লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং সেবাকেন্দ্র এবং ই-বর্জ্যের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় বাণিজ্যকেন্দ্র ঢাকায় দুটি গবেষণাগার স্থাপন করা হবে। লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পকেট অফিস স্থাপন করা হবে রাজশাহী, জয়পুরহাট ও সাভারে। এর মধ্য দিয়ে বৃহৎ ও ক্ষুদ্র শিল্প কারখানার মধ্যে সংযোগ স্থাপন, পেশাজীবীদের দক্ষতা উন্নয়ন সম্ভব হবে বলে প্রকল্প প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে। এদিকে বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান মো. ফারুক আহমেদ স্বাক্ষরিত প্রকল্প প্রস্তাবে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে উৎপাদিত বিপুল ই-বর্জ্য প্রক্রিয়াজাত করা না হলে তা পরিবেশের ওপর মারাত্মক হুমকি সৃষ্টি করবে। কারণ ই-বর্জ্য ভারী ধাতু বহন করে, যা মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এছাড়া অনিয়ন্ত্রিত ও অবৈজ্ঞানিকভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা হতে পারে আরো ভয়ংকর। ঢাকার রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্যমতে, গৃহস্থালি পণ্যে থাকা ই-বর্জ্যের ক্ষতির মাত্রা অনেক বেশি। অপচনশীল এসব বর্জ্যের ধাতু এবং রাসায়নিক মাটির গুণাগুণ নষ্ট করে। এসবের প্রভাবে মানবদেহে ক্যান্সার, শ্বাসকষ্ট, কিডনি ও লিভারের বিভিন্ন সমস্যা এবং মস্তিষ্ক ও রক্তনালির বিভিন্ন রোগ হতে পারে।

Share
[related_post themes="flat" id="295656"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com