,
সংবাদ শিরোনাম :
» « ক্ষমা চাইলেন বুয়েটের ভিসি ॥ বহিষ্কার ১৯, দলীয় রাজনীতি নিষিদ্ধ» « এমপি রবির বাসভবনে শারদীয় পূর্ণমিলনী সম্প্রীতির মেলা অনুষ্ঠিত» « সদরের বেত্রাবতী নদীর উপর নব-নির্মিত ব্রিজের উদ্বোধন করলেন এমপি রবি» « জেলা রেফারীজ এসোসিয়েশন এর আয়োজনে রেফারী রিফ্রেসার্স কোর্স উদ্বোধন করলেন পুলিশ সুপার» « শহরের সবুজবাগে সিসি ঢালাই রাস্তার কাজ উদ্বোধন» « র‌্যাবের অভিযানে ফেনসিডিল সহ আটক এক» « বুয়েটে আবরার হত্যা মামলার আসামী শামীম বিল্লাহ গ্রেপ্তার» « বাঁশদহে সত্য ও ন্যায়ের প্রতিচ্ছবি দৃষ্টিপাত এর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি ও শুভকামনায় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন» « সুন্দরবনকে সুন্দর রাখতে হবে» « জুয়ার বোর্ড থেকে ৪ জুয়াড়ি আটক» « খলিষখালিতে ঈদগা ও গণ-গোরস্থানের উদ্বোধন

দেশের মিঠা পানির মৎস্য সম্পদ এবং বাস্তবতা

বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ হিসেবে পরিচিতি পেলেও দেশটি মৎস্য সম্পদে পরিপূর্ণ একটি দেশ। আবহমান কাল যাবৎ এদেশের মানুষের জন্য আমাদের মৎস্য সম্পদ বিশেষ অপরিহার্য হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। বাংলাদেশের আনাচে কানাচে, পুকুরে, নদ নদীতে, খাল বিলে, জলাশয়ে বলা যায় সর্বত্র মাছের উপস্থিতি। মাছে ভাতে বাঙ্গালী এই চিরচারিত প্রবাদটি বর্তমান সময়ে যেন ঝাপসা আর ফ্যাকাসে হতে চলেছে। কারন সর্বত্র মাছের উপস্থিতি নেই। এক সময় দেশের যে স্থানে পানি থাকতো বা পানির অস্তিত্ব দেখা দিত সেই স্থানে মাছের অস্তিত্ব থাকতো কিন্তু সময়ের ব্যবধানে আর বাস্তবতার নিরিখে আমাদের দেশের মৎস্য সম্পদ বিলুপ্তির পথে বিশেষ করে মিঠা প্রজাতীর মৎস্য সম্পদ। নানান ধরনের মিঠা পানির মাছ ষোল, বোয়াল, চেং, বেতলা, কই জেল, মাগুর, পুটি, ঝায়া, সহ বিভিন্ন প্রজাতীর মিঠা পানির মাছ হারিয়ে যেতে বসেছে। আর এ কারনে পূর্বের ন্যায় বর্তমান সময়ে দেশে মিঠা পানির মাছের উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে না। মাছে ভাতে বাঙ্গালী চিরায়ত এই প্রবাদটির মুল কথকথা মাছকে নিয়ে, বর্তমান বর্ষা মৌসুমে চারিদিকে পনি প্রবাহ কিন্তু যথাযথ মাছ নেই। বর্ষা মৌসুমের এই সময়ে দেশের বিল ঝিল, জলাশয়ে মৎস্য ধরার উৎসব চলত কিন্তু বর্তমান সময়ে সেই উৎসব নেই, বাংলাদেশ বর্তমান সময়ে মৎস্য সম্পদ রপ্তানী করে প্রতি বছর কোটি কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন করলেও মিঠা পানির মৎস্য বিলুপ্তির পথে, বাংলাদেশ দীর্ঘ কয়েক যাবৎ বাগদা, গলদা সহ অপরাপর লোনা পানীর মৎস্য রপ্তানী করে চলেছে। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন বাস্তবতায় লবনাক্ত পানির ব্যাপক উপস্থিতির কারন হেতু মিঠাপানির মৎস্য বিলুপ্তির পথে। আবহমান বাংলার চিরচারিত নিয়ম আর প্রথার আদলে এদেশের মানুষ মাছের প্রতি বিশেষ দুর্বল আর তা মিঠা পানির মাছ। দেশের মিঠা পানির মাছ রক্ষা করতে হবে। মিঠা পানির মৎস্য সম্পদ কে এগিয়ে নিতে হবে। তবেই না মিঠা পানির মৎস্য সম্পদ রক্ষা হবে।

Share
[related_post themes="flat" id="298309"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com