,
সংবাদ শিরোনাম :
» « এবার লবণ নিয়ে গুজব ॥ পর্যাপ্ত লবণ আছে, অতিরিক্ত দরে বিক্রি করলে জেল জরিমানা- প্রেস কনফারেন্সে জেলা প্রশাসক মোস্তফা কামাল» « নতুন পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে সাতক্ষীরা সবরুটে বাস চলাচল বন্ধ ॥ যাত্রী সাধারনের দূর্ভোগ চরমে» « বাইপাস সড়কে দূর্ঘটনায় ভ্যান চালকের মৃত্যু» « সাতক্ষীরায় বিজিবির অভিযানে ইলিশ মাছ সহ আটক এক» « সদরে দূর্ণীতি প্রতিরোধে কর্মক্ষেত্রে শ্রদ্ধাচার চর্চা বিষয়ক মত বিনিময় সভা» « কালিগঞ্জ জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে যুবক কে এসিড নিক্ষেপ» « শ্যামনগরে পাকহানাদার মুক্ত দিবস উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত» « দুইদিন ব্যাপী আয়কর মেলায় শুভ উদ্বোধন করলেন এমপি জগলুল হায়দার» « দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী» « সুন্দরবনে অবৈধ ফাইবার জাল ১টি ডিঙ্গি নৌকা সহ ৪ জন আটক» « লবণ বিষয়ে গুজব ॥ রাতে বাজার পরিদর্শন করলেন দেবহাটা নির্বাহী অফিসার

নি¤œ আদালতে ঝুলে আছে লাখ লাখ মাদক মামলা

mamla

এফএনএস : সারাদেশের নি¤œ আদালতে লাখ লাখ মাদক মামলা ঝুলে আছে। মামলা নিষ্পত্তিতে ধীরগতির কারণে মামলার জট সৃষ্টি পাশাপাশি জামিন না পাওয়ায় কারাগারগুলোয় বন্দির ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। আবার মাদক মামলার আসামিরা জামিন নিয়ে বেরিয়ে পুরনো ব্যবসায়ই নিজেকে আবার যুক্ত করছে। ফলে বিফলে যাচ্ছে মাদক নির্মূলের সরকারের মূল উদ্দেশ্য। তাছাড়া মামলার অন্য সাক্ষীরাও সাক্ষ্য দিতে প্রায় ক্ষেত্রেই উদাসীন থাকেন। ফলে মামলায় দীর্ঘসূত্রতা তৈরি হচ্ছে। আদালত সংশি−ষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। সংশি−ষ্ট সূত্র মতে, বর্তমানে শুধুমাত্র ঢাকা জেলাতেই ২৫ হাজারের বেশি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। আইনজীবীদের মতে মামলার চার্জশীট প্রদানে বিলম্ব, সাক্ষীর অনুপস্থিতি, বিচারক সঙ্কট, সরকারি কৌঁসুলিদের ব্যক্তিগত মামলার প্রতি ঝোঁক ইত্যাদি নানা কারণে মাদক মামলার বিচার কাজ ঝুঁলে আছে। এতোদিন মাদক মামলায় বিচারের জন্য ট্রাইব্যুনাল গঠন না হওয়ায় বিচারকাজ বন্ধ ছিল। তবে হাইকোর্টের আদেশের ফলে বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি অবশ্য কমেছে। শুরু হয়েছে বিচারকাজ। হাইকোর্টের আদেশে বলা হয়েছে, ট্রাইব্যুনাল না হওয়া পর্যন্ত ফৌজদারি কার্যবিধির ৫(২) ধারা অনুযায়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মাদকের মামলা চলবে। বর্তমানে মাদকবিরোধী অভিযানের ফলে দিন দিন মামলার সংখ্যাও বাড়ছে। দেশে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। চালানো হচ্ছে সাঁড়াশি অভিযান। ইতোমধ্যে বেশ কিছু মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার হয়েছে। মাদক মামলায় যারা গ্রেফতার হয়েছে বা যাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে এমন অনেক মাদক কারবারি বন্দুকযুদ্ধে মারাও গেছে। সূত্র জানায়, বিগত ২০১৮ সালে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ১৯৯০ সংশোধনের পর ট্রাইব্যুনাল গঠন না করায় এক বছর ধরে বিচার কাজ বন্ধ ছিল। ওই প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট এক আদেশে বলে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ’১৮-এর ৪৪(১) ধারা অনুসারে ট্রাইব্যুনাল না হওয়া পর্যন্ত ফৌজদারি কার্যবিধির ৫(২) ধারা অনুযায়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মাদকের মামলা চলবে। হাইকোর্টের আদেশের ফলে বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি অনেকাংশে কমেছে। গত ৩০ জুন পর্যন্ত সারাদেশের আদালতে বিচারাধীন ছিল ১ লাখ ৭০ হাজার ২৪২ মামলা। তার মধ্যে ৫ বছরের বেশি সময় বিচারাধীন রয়েছে ৩১ হাজার ১৫৩টি মামলা। জুনের পর গত দুই মাসে সারাদেশে আরো কয়েক হাজার মাদক মামলা দায়ের হয়েছে। বিচার না চলায় ক্রমেই বাড়ছে এ মাদক মামলার স্তূপ। সবচেয়ে বেশি মাদক মামলা রয়েছে ঢাকা জেলায়। এ জেলায় বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ২৫ হাজার ৫৫৬টি। সূত্র আরো জানায়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৪৪(১) ধারায় বলা হয়েছে, এ আইনের উদ্দেশপূরণকল্পে সরকার সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা প্রয়োজনীয় সংখ্যক মাদকদ্রব্য অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল স্থাপন করতে পারবে। (৪) উপ-ধারায় বলা হয়েছে, এ ধারার অধীন ট্রাইব্যুনাল স্থাপিত না হওয়া পর্যন্ত সরকার সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা, সংশি−ষ্ট জেলার যে কোন অতিরিক্ত জেলা জজ বা দায়রা জজকে তাহার নিজ দায়িত্বের অতিরিক্ত ট্রাইব্যুনালের দায়িত্ব প্রদান করতে পারবে। গত ৮ জুলাই হাইকোর্ট মাদক মামলার এক আসামির জামিনের শুনানিকালে ট্রাইব্যুনাল স্থাপন ও গেজেট জারি না করার বিষয়টি লক্ষ্য করে। ওই দিনই আদালত এ বিষয়ে আইন সচিব ও স্বরাষ্ট্র সচিবের কাছে ব্যাখ্যা তলব করে। এরপর বিষয়টি শুনানির জন্য উঠলে ট্রাইব্যুনাল স্থাপন এবং গেজেট প্রকাশ না করায় ২৫ আগস্ট ক্ষোভ প্রকাশ করে হাইকোর্ট। একইসঙ্গে রাষ্ট্রপক্ষকে ১৩ অক্টোবরের মধ্যে গেজেট প্রকাশের অগ্রগতি জানাতে নির্দেশ দেয়। আদালত বলে, গেজেট না হওয়া দুঃখজনক, দুর্ভাগ্যজনক। এদিকে হাইকোর্টের সংশি−ষ্ট বেঞ্চের ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পি ওই দিন সাংবাদিকদের জানান, এখনো গেজেট হয়নি। গেজেট না হওয়ায় মার্চের পর থেকে বিচারকাজ বন্ধ রয়েছে। এ্যাটর্নি জেনারেল বিষয়টি নিয়ে দুই মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলেছেন। একটা খসড়ার কথা শোনা যাচ্ছে। তবে আমাদের এখনো কিছু জানানো হয়নি। জানালে আমরা আদালতকে এ বিষয়ে অবহিত করব। জুনের পর গত দুই মাসে সারাদেশে আরো কয়েক হাজার মাদক মামলা দায়ের হয়েছে। এছাড়া বিচার না চলায় ক্রমেই বাড়ছে মাদক মামলার স্তূপ। অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানান, মাদক মামলার বিচারে ট্রাইব্যুনাল হয়নি। আদালত এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলে আইনমন্ত্রীকে বিষয়টি অবহিত করা হয়। আইনমন্ত্রী জানান, শীঘ্রই পদক্ষেপ নেয়া হবে। আদালত বলেছে, মাদক আইনের ৪৪(১) ধারা অনুযায়ী ট্রাইব্যুনাল না হওয়া পর্যন্ত ফৌজাদারি কার্যবিধির ৫(২) ধারা অনুযায়ী অন্যান্য আইনের বিচারের বিধান অনুযায়ী হবে।

Share
[related_post themes="flat" id="302032"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com