,
সংবাদ শিরোনাম :
» « আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের রায় ॥ গণহত্যা বন্ধ ও রোহিঙ্গাদের সুরক্ষার নির্দেশ» « দূর্ণীতিবাজরা যত ক্ষমতাধর ব্যক্তি হোক পার পাবে না ॥ সাতক্ষীরায় মত বিনিময় সভায় দূর্ণীতি দমন চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ» « অপহরণের দুই দিন পর কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার» « সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব দীর্ঘদিন পর সাংবাদিকদের জন্য উণ¥ুক্ত ॥ আনন্দের বন্যায় ফুল ও ভালবসায় সিক্ত নব-নির্বাচিত কমিটি» « সেনাবাহিনীর শীতকালীন প্রশিক্ষণ মহড়া প্রত্যক্ষ ॥ সন্ত্রাস ও দুর্নীতি মুক্ত দেশ গড়ার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত প্রধানমন্ত্রীর» « সাতক্ষীরা রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত» « খুলনায় বিদেশী পিস্তল সহ কমিউনিষ্ট পার্টির সদস্য আটক» « সীমান্তে বিএসএফ’র নির্যাতনে বাংলাদেশী গরু রাখালের মৃত্যু» « আশাশুনির শালখালী বাজার টু কালিবাড়ী সড়কের বেহাল দশা» « সুন্দরবনে অবৈধ কাঠসহ ১টি নৌকা আটক» « আইন শৃঙ্খলা, চোরাচালান, সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ কমিটির সভা

দেশে ভিক্ষুকের সংখ্যা আড়াই লাখ -সংসদে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী

ঢাকা ব্যুরো ॥ সমাজকল্যাণ মন্ত্রী মো. নুরুজ্জামান আহমেদ বলেছেন, সারাদেশের ভিক্ষুকের পুর্নবাসন কার্যক্রমে মন্ত্রণালয়ের চাহিদা সাড়ে ৪শ কোটি টাকার বিপরীতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে মাত্র ৩ কোটি টাকা। বরাদ্দ পাওয়া পুরো টাকাই ভিক্ষুকের পুর্নবাসনে মাঠ পর্যায়ে পাঠানো হয়েছে। গতকাল সোমবার টেবিলে উত্থাপিত চট্টগ্রাম-৪ আসনের এমপি দিদারুল আলমের এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী সংসদে ওই তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরিন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকালে মুলতবি এ অধিবেশন শুরু হয়। একাদশ জাতীয় সংসদের সদস্য মো. মোজাম্মেল হোসেন এর মৃত্যুতে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনা চলছিল। কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী সিটিং কোন সংসদ সদস্য মারা গেলে তার ওপর আনিত শোক প্রস্তাবের আলোচনার পর সংসদের মুলতবি ঘোষণা করা হবে। মন্ত্রী সংশ্লিষ্ট এমপির ওই প্রশ্নের জবাবে আরো বলেন, বাংলাদেশে ভিক্ষুকের সংখ্যা নির্ধারণের জন্য সমন্বিতভাবে কোন জরিপ পরিচালিত হয়নি। তবে, জেলা পর্যায়ের জেলা প্রশাসক এবং জেলা সমাজসেবা অফিসের উপ-পরিচালকের কার্যালয়ের জরিপ অনুযায়ী সারাদেশে ভিক্ষুকের সংখ্যা ২ লাখ ৫০ হাজার। এসব ভিক্ষুকের পুর্নবাসন কার্যক্রম সম্পন্নের জন্য সাড়ে ৪শ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয় পেয়েছে মাত্র ৩ কোটি টাকা। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৪ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। দেশের ০.১৭ শতাংশ মানুষ ভিক্ষাবৃত্তির মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে। ভিক্ষুকের পুর্নবাসনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ডিসিদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করে থাকে। মো. ফরিদুল হক খানের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, দেশের ১৮ জেলায় ৫১টি উপজেলা ও ইউনিটের অধীনে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহিতা মহিলা ভাতা এবং অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা উপকারভোগীদের ডিজিটাল পদ্ধতি তথা জিটুপি পদ্ধতি ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। বিশ^ব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় ২১৪৪৩.৭৮ লাখ টাকা প্রক্কলিক ব্যয়ে সিটিএম প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। এ কে এম রহমতুল্লাহ প্রশ্নের জবাবে নুরুজ্জামান আহমেদ বলেন, সরকারি শিশু পরিবারে পিতৃহীন অথবা পিতৃ-মাতৃহীন ৬-১৮ বছরের শিশুদের লালন পালন করে থাকে। বয়স ১৮ বছর উত্তীর্ণ হলে তাদের বিবাহের, চাকুরির, সামাজিকভাবে, প্রশিক্ষণের এবং শিক্ষার মাধ্যমে পুর্নবাসন করা হয়। ৬ বিভাগে ৬টি এতিম ও প্রতিবন্ধী ছেলেমেয়েদের জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে। সরকারি শিশু পরিবার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ৬৯ হাজার ২৮৬ জনকে পুর্নবাসন করা হয়েছে।

Share
[related_post themes="flat" id="305445"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com