,
সংবাদ শিরোনাম :
» « বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিন আজ: মুজিব বর্ষের শুরু» « জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন» « ঝাউডাঙ্গা কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভা» « ইতিহাসের গতি পাল্টে দেওয়া যত ভাষণ ॥ এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ১৯৭১» « শ্যামনগর সরকারি মহসীন ডিগ্রী কলেজের নতুন ভবনের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করলেন সংসদ সদস্য জগলুল হায়দার» « কলারোয়ার ক্ষেতমুজুরদের সাথে সাংসদ মুস্তফা লুৎফুল্লাহ’র মতবিনিময়» « কালিগঞ্জে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ॥ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সন্তানদের উদ্যোগে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ» « থানা পরিদর্শনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎ মিশ» « মুজিববর্ষ উপলক্ষে জেলা প্রাথঃ শিক্ষা অফিসারের মহানুভবতার দেওয়াল উদ্বোধন» « অগ্নিঝরা মার্চ» « আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী ঃ আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলী

পানিতে ঢাকা পর্যটন শহর ॥ অস্ট্রেলিয়ার রাস্তায় কুমির

দেশ উন্নত হলেই প্রাকৃতিক দুর্যোগ নিয়ন্ত্রণে থাকবে এমন কোনো কথা নেই। চকচকে তকতকে শহরগুলোও গ্লোবাল ওয়ার্মিংয়ের মতো জলবায়ু পরিবর্তনের বড় শিকার হতে পারে। এর সবচেয়ে বড় প্রমাণ ঠিক এই সময়ে পানিতে ঢেকে গেছে ইতালির ভেনিস। দেশটিতে চলছে জরুরি অবস্থা। পানিতে ভাসা ভেনিস শহর বিশ্বের অন্যতম পর্যটন তীর্থ। সেই শহরেই পানিবন্দী হয়ে পড়েছে মানুষ। এমনি করে বিশ্বের অনেক পর্যটন শহর ও ব্যস্ততম শহর অনেক সময় পানিকবলিত হয়ে পড়ে। এমন কিছু ঘটনা নিয়েই আমাদের আজকের বিশেষ আয়োজনে- অস্ট্রেলিয়ার রাস্তায় কুমির : চলতি বছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ার উত্তর-পূর্ব অংশ চলে যায় বন্যার পানির নিচে। সে সময় স্কুল, কলেজ, ঘরবাড়ি এমনকি বিমানবন্দরও ডুবে গিয়েছিল। এক শতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ এ বন্যায় সেখানে হাজার হাজার ঘরবাড়ি পানিতে ডুবে যায়। বন্যার প্রভাবে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় কুইন্সল্যান্ড। ধস ও বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটে বেশি। কুইন্সল্যান্ড রাজ্যের ব্রিসবেনে কমপক্ষে পাঁচ হাজার ঘরবাড়ি ও সম্পদ বন্যার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেখানকার বাড়ির ছাদ থেকে আটকেপড়া দুর্গতদের উদ্ধার করে অস্ট্রেলিয়ার সেনাবাহিনী। বন্যার পানির তোড়ে রাস্তায় উঠে এসেছিল কুমিরও। কুইন্সল্যান্ড ছাড়াও দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যেও বন্যা দেখা দেয়। গ্রীষ্মম-লীয় শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সৃষ্ট প্রবল বর্ষণের পর সেখানে বিভিন্ন নদীর পানি বাড়তে থাকে। বিশেষ করে জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি সময়টাতে বরাবরই এই অঞ্চলে বেশি বৃষ্টিপাত হয়। কিন্তু এ রকম ভয়াবহ বর্ষণ আগে কখনো দেখেননি বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা। টানা ১০ দিনে সেখানে ৩.৩ ফিটের বেশি বৃষ্টিপাত হয়। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত টাউন্সভিল থেকে সাড়ে ৬শর বেশি লোককে তাদের ঘরবাড়ি থেকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়। সেখানে প্রায় ১১ হাজার ঘরবাড়ি বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। অস্ট্রেলিয়ার সেই বন্যায় দুজনের মরদেহ উদ্ধার করে কর্তৃপক্ষ।-সংগৃহীত

Share
[related_post themes="flat" id="309985"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com