,
সংবাদ শিরোনাম :
» « বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিন আজ: মুজিব বর্ষের শুরু» « জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন» « ঝাউডাঙ্গা কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভা» « ইতিহাসের গতি পাল্টে দেওয়া যত ভাষণ ॥ এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ১৯৭১» « শ্যামনগর সরকারি মহসীন ডিগ্রী কলেজের নতুন ভবনের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করলেন সংসদ সদস্য জগলুল হায়দার» « কলারোয়ার ক্ষেতমুজুরদের সাথে সাংসদ মুস্তফা লুৎফুল্লাহ’র মতবিনিময়» « কালিগঞ্জে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ॥ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সন্তানদের উদ্যোগে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ» « থানা পরিদর্শনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎ মিশ» « মুজিববর্ষ উপলক্ষে জেলা প্রাথঃ শিক্ষা অফিসারের মহানুভবতার দেওয়াল উদ্বোধন» « অগ্নিঝরা মার্চ» « আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী ঃ আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলী

শীত মৌসুমেও সবজির মূল্যের পাগলা ঘোড়া ছুটছেই

দৃষ্টিপাত রিপোর্ট ॥ শীত মৌসুমে সবজির মূল্য অন্যান্য মৌসুম অপেক্ষা সহনীয় এবং ভোক্তা সাধারনের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকার প্রথা দির্ঘ দিনের। কিন্তু বর্তমান শীত মৌসুম দীর্ঘ সময়ের সেই পরিস্থিতি ছন্দ পতন ঘটেছে। মৌসুমের প্রথম হতে বর্তমান সময়ের দিনগুলোতে সবজি বাজার উর্ধমুখি, শীতের শেষ সময়েও সবজি বাজার সাধারনের ক্রয় ক্ষমতা যেন অরন্যের রোদন। সাম্প্রতিক শহরের বিভিন্ন প্রান্তের সবজি বাজার সহ মফস্বলের বাজার বিভিন্ন প্রান্তের সবজি বাজার সহ মফস্বলের বাজার পরিদর্শনে ক্রেতা, বিক্রেতা প্রান্তীক চাষী আড়ৎদার সহ সবজি বাজার ব্যবস্থার সাথে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানাগেছে চাহিদার তুলনায় উপাদন যথাযথ না হওয়ায় উৎপাদন খরচ অন্যান্য বছর অপেক্ষা বশী, মধ্যস্বত্বাভোগীদের দৌরত্ব, এক শ্রেণীর পাইকারী ও খুচরা ব্যবসায়ীদের মধ্যে অধিক মুনাফা লাভের অনৈতিক প্রতিযোগিতা, কোন কোন সময় পরিবহন খরচ বৃদ্ধি পাওয়া, কৃষকরা উৎপাদন পরবর্তি সবজি খেত হতে বিক্রি পরবর্তি বাজার পর্যন্ত আসতে সর্বশেস খুচরা বিক্রেতা এবং ক্রেতাদের হাতে আসা পর্যন্ত হাতে আসা পর্যন্ত যে কোন সবজি কয়েকটি হাত বদল হয়। বিধায় মূল্য বৃদ্ধির পাগলা ঘোড়া ছুটতে থাকে তো থাকেই। বর্তমান সময়ে অন্যান্য বছর সবজির মূল্য অপেক্ষাকৃত কম থাকলেও বর্তমান বাজারে শীত কালিক সবুিজর মধ্যে ছিম কেজি প্রতি চল্লিশ টাকা হতে বিয়াল্লিশ, পঁয়তাল্লশ টাকা বেগুন ত্রিশ হতে ত্রিশ পয়ত্রিশ টাকা, মেটে আলূ কেজি প্রতি পঞ্চাশ হতে ষাট টাকা, গোল আলু চৌদ্দ হতে পনের টাকা, মিষ্টি কুমড়া বিশ টাকা হতে পঁচিশ টাকা, পিপি পচিশ হতে ত্রিশ টাকা এই সময়ে ফুলকপি, ওলকপি কেজি প্রতি দশ/বারটাকা হওয়া কথা কিন্তু বর্তমান সময়ে বুলকপি বিশ/পঁচিশ টাকা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে। বাজারে বর্তমান সময়ে যে কোন সময়ে লাউ চল্লিশ টাকা প্রতিপিচ, গাজরের মূল্য অপেক্ষাকৃত কম প্রতিকেজি বিক্রি হেচ্ছ বিশ হতে পঁচিশ টাকা। দীর্ঘদিন পর খেরাইয়ের মুল্য কিছুটা সন্তোস জনক তবুও কেজি প্রতি বিশ হতে পঁচিশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কাচকলা প্রতিকেজি পয়ত্রিশ হতে চল্লিশ টাকা, লাল শাক কেজি প্রতি চল্লিশ টাকা বিক্রি হচ্ছে। সাতক্ষীরার শষ্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত পাটকেলঘাটা, কলারোয়া ও তালা উপজেলা অন্যান্য এলাকা হতে সবজির মূল্য কিছুটা কম, সাতক্ষীরা শহরস্থ বড় বাজারের উল্লেখযোগ্য সংখক আড়ৎদার কলারোয়া তালার পাশাপাশি যশোর জেলার শার্শা, বাগাছড়া, ঝিকরগাছা এবং খুলনা জেলার চুকনগর, কপিলবুনি সহ আশপাশের এলাকা হতে সবজির আমদানী করে থাকে, একই ভাবে উল্লেখিত এলাকার পাইকারী সবজি ব্যবসায়ীরা শহরের আড়ৎগুলো সবজি সরবরাহ করে থাকে। শহরের পাইকারী ব্যবসায়ী ও আড়ৎদাররা শহরের বিভিন্ন কাচা বাজারের পাশাপাশি উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ও আড়ৎগুলোতে সরবরাহ করে থাকে। ঝাউডাঙ্গা, কুলিয়া পারুলিয়া, সখিপুর, বুধহাটা, আশাশুনি, কালিগঞ্জ, মৌতলা, কালিগঞ্জের বালিয়াডাঙ্গা উৎপাদিত খেরাই সহ অন্যান্য সবজি জেলার বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা হয়। বাজার ব্যবস্থায় সবজি ক্রয় বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ক্রেতা সাধারণ কেও এক শ্রেণীর বিক্রেতারা প্রতারনার শিকারে পরিনত কবরে থাকে আর সেটি এমনই একেক বাজারে সবজির মূল্র একেক ধরনের অর্থাৎ ভিন্ন ভিন্ন মূল্যেল। পাইকারী আড়ৎদার গুলো ও সবজি মূল্যের ক্ষেত্রে কখনও কখনও অনৈতিক এবং অধিক লাভকে প্রশ্রয় দিয়ে থাকে। বাজার পরিদর্শনে আরও দেখা গেছে উপজেলা ভিত্তিক সবজির আড়ৎগুলোর আড়ৎদারদের মধ্যে অলিখিত চুক্তির ফলে একে আড়তে একেক সবজির উপস্থিতি দেখা যায়। উদাহরন হিসেবে বলা যায় যে আড়তে আলু সে আড়তে কেবল আলু, আবার যে আড়তে মিষ্টা কুমড়া সেই আড়তে শুধু মিষ্টি কুমড়া অনুরুপ ভাবে কাচামাল, পেয়াজকালি, খেরাই সহ অপরাপর সবুিজ, এক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সবজি কেবল একটি আড়তে সে কারনে আড়ৎদাররা ইচ্ছানুযায়ী মুল্য নির্ধারন করে থাকে। সাতক্ষীরার সবজির বাজারের মূল্য বৃদ্ধির অসম প্রতিযোগিতা আর পগালা ঘোড়ার ছুটে চলা রোধ করতে হবে আর এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে মনিটরিং জোরদার করতে হবে।

Share
[related_post themes="flat" id="309999"]

সর্বশেষ সংবাদ

সম্পাদক ॥ জিএম নুর ইসলাম, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, যশোর রোড, সাতক্ষীরা, ফোন ও ফ্যাক্স ॥ ০৪৭১-৬৩০৮০, ০৪৭১-৬৩১১৮
নিউজ ডেস্ক ॥ ০৪৭১-৬৪৩৯১, বিজ্ঞাপন ॥ ০১৫৫৮৫৫২৮৫০ ই-মেইল ॥ driste4391@yahoo.com