1. admin@dainikdrishtipat.com : admin :
  2. driste4391@yahoo.com : Dailik Drishtipat : Dailik Drishtipat
বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:৩০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে আজ বসছেন শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যানরা সাতক্ষীরা পৌরসভার ওয়াস ব্যবসায়ী ও উপকরণ সরবরাহকারীদের সাথে লিংকেজ স্থাপন বিষয়ক সভা তালায় দলিত জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন শীর্ষক সভা বানভাসিদের মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত মহামারী করোনা ভাইরাস এবং বাস্তবতা আশাশুনিতে অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা কলারোয়ার ওসি মুনীর-উল-গীয়াস সবাইকে কাঁদিয়ে বদলী হয়ে চলে গেলেন কলারোয়ার কেরালকাতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ৩ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা পৌর মেয়রদের আজীবন পদে থাকার ইচ্ছা ইসিতে চিঠির স্তুপ ভিটামিন ‘এ’ প্ল¬াস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা

করোনার অস্তিত্ব থেকেও নেই ॥ সবই যেন স্বাভাবিক ॥ কেউ মানছে না স্বাস্থ্যবিধি

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০

এফএনএস : দেশে বিরাজ করছে করোনাময় স্বাভাবিকতা। সরকারী বিধি-নিষেধ থাকলেও স্বাভাবিক সময়ের মতোই মানুষের চলাফেরা। স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই। মানুষের আচরণে মনেই হয়না করোনার মতো ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি বিরাজমান। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের ধারণা, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কিছু এলোপাতাড়ি সিদ্ধান্তে করোনা পরিস্থিতিকে স্বাভাবিক ভাবতে শুরু করেছে মানুষ। করোনাভাইরাস থেকেও যেন নেই। এক ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ আস্থা তৈরি হয়েছে মানুষের মনে। এর ফলে করোনা সংক্রমণ যেমন কমছে না তেমনি পরিস্থিতি এগিয়ে চলেছে ভয়াবহ গন্তব্যে। দেশের করোনা পরিস্থিতি এখনও ‘অতি ঝুঁকিপূর্ণ’ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সম্প্রতি আইইডিসিআর ও আইসিডিডিআরবির এক যৌথ জরিপে বলা হয়েছে, রাজধানীর অন্তত ৯ শতাংশ মানুষ করোনায় আক্রান্ত। এই হিসেবে রাজধানীতে আক্রান্ত অন্তত ১৮ লাখ মানুষ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, বিভিন্ন জরিপ এবং দৈনিক রোগী শনাক্তের হার দেখিয়ে দিচ্ছে বাংলাদেশ এখনও করোনার প্রবল থাবা থেকে বের হয়ে আসতে পারেনি। বর্তমান অবস্থা থেকে হঠাৎ করেই দেশের করোনা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধে মার্চ থেকে জুন পর্যন্ত বিধি-নিষেধসহ বিভিন্ন কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল সরকার। পরবর্তীতে দেশের মানুষের জীবনযাত্রার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে একে একে প্রায় সব ক’টি বিধি-নিষেধ উঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু করা ছাড়া দেশের মানুষের জীবনযাত্রা যেন স্বাভাবিক হয়ে পড়ছে। বিধি-নিষেধ উঠিয়ে দিয়ে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা, মাস্ক পরিধান, অপ্রয়োজনে বাসার বাইরে না যাওয়াসহ বেশ কয়েকটি নির্দেশনা দিয়েছিল সরকার। শিথিল করা মানে স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা নয়- এই নির্দেশনাটি সুস্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে সরকার। বাস্তবে ওই সব নির্দেশনা পালন না করার কারণে দেশে যেন করোনাময় স্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে। অর্থাৎ প্রতিদিনের কয়েক হাজার নতুন রোগী শনাক্ত এবং দৈনিক গড়ে ত্রিশজনের মৃত্যুর খবরও মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে সচেতন করে তুলতে পারছে না। করোনাময় স্বাভাবিক অবস্থা ॥ করোনার মহামারীতেও যেন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার আগের পরিবেশ ফিরে এসেছে বাংলাদেশে। উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার মানসিকতা ও সচেতনতা অনেক আগেই উঠে গেছে। গত জুলাইয়ের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে জেলা ও বিভাগীয় শহরগুলোতেও একই চিত্র বেশ লক্ষণীয়। খোদ রাজধানীতেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা তো দূরের কথা, মুখে মাস্ক ব্যবহারকারীর সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে কমেছে। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, রাজধানীর সর্বত্র করোনাপূর্ব পরিবেশ বিরাজ করছে। ফুটপাথে জমে উঠেছে ভাসমান চা দোকানের ব্যবসা। চা দোকানগুলোর সামনে ছোট্ট জায়গায় গাদাগাদি করে বসে চা খাওয়ার ভিড়। বসার জায়গা না পেয়ে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আছেন অনেকে। চা খাওয়ার অজুহাতে চলছে আড্ডা। নামমাত্র সামান্য পানিতে ধোয়া একই কাপ মিশে যাচ্ছে অসংখ্য মানুষের ঠোঁটে। চায়ের সঙ্গে চলছে সিগারেট। একই খোলা সিগারেটের প্যাকেটে হাত লাগাচ্ছে অনেক ক্রেতা। সিগারেট জ¦ালাতে ব্যবহার করা হচ্ছে একই লাইটার। একই সিগারেট কয়েকজনের মধ্যে ভাগাভাগি করে খাওয়ার দৃশ্যও ফিরে এসেছে। মগবাজার নিউ ইস্কাটন রোডের মুক্তিযোদ্ধা সংসদের গলির মাথায় সাজানো হয়েছে তিনটি চা দোকান। তাদের একজন হলেন মোঃ জাহাঙ্গীর। তিনি জানান, মানুষ এখন করোনাভাইরাসে ভয় পায় না। সারাদিন চা-সিগারেট বিক্রি হয়। চা-সিগারেট খাওয়া মানুষের অভাব নেই। আমাদের মধ্যেও করোনা ভয় কেটে গেছে। কেউ স্মরণ করিয়ে না দিলে করোনার কথা মনে পড়ে না। বেঁচে থাকার প্রয়োজনে ঝুঁকি নিয়েও দোকান চালাতে হচ্ছে বলে জানান মোঃ জাহাঙ্গীর। স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই অপ্রয়োজনে বাইরে দলবদ্ধভাবে আড্ডা শুরু হয়ে গেছে। মাস্ক ছাড়াই কাছাকাছি, মুখোমুখি বসে যেখানে সেখানে আড্ডা জমিয়ে তোলা হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা শহরগুলোতে এই চিত্র আরও সুস্পষ্ট। কারও কিছু বলার নেই। স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিতে গিয়ে নাজেহাল হওয়ার ঘটনাও ঘটছে। অতিরিক্ত যাত্রী বহন, এক সিটে একাধিক যাত্রী নেয়া, ড্রাইভার, কন্ডাক্টর, হেলপার স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক গলায় ঝুলিয়ে রাখা, গাড়িতে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার না করে বা হ্যান্ড গ্লাভস না পরে ভাড়া আদায় করা হচ্ছে রাজধানীর অনেক গণপরিবহনে। অনেক সময় স্বাস্থ্যবিধিহীন পরিবেশ দেখেও যাত্রীরাও পরিবহনে তুলতে হেলপারদের বাধ্য করান। রিক্সাচালকদের কারও মুখে মাস্ক নেই। যাত্রী সতর্ক না থাকলে চলন্ত অবস্থায় রিক্সাচালকের শ^াস-প্রশ^াস ও হাঁচি-কাশি অতি সহজেই যাত্রীকে আক্রান্ত করতে পারে। দেশে করোনাভাইরাসের বাস্তব চিত্র ॥ মানুষ আমলে না নিলেও বাংলাদেশ এখনও করোনাভাইরাসের প্রবল ঝুঁকিতে রয়েছে বলে সরকারী প্রতিষ্ঠানের গবেষণা প্রতিবেদনে প্রকাশ পেয়েছে। করোনায় জর্জরিত একের পর এক দেশকে টপকিয়ে সামনের স্থান দখল করে নেয়া এবং দৈনিক করোনা রোগী শনাক্তের উচ্চ হার দেখিয়ে দিচ্ছে যে, বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি প্রবল ঝুঁকিতেই রয়েছে। কয়েক দিন আগে প্রকাশিত করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এবং আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) এক যৌথ গবেষণা বলছে, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকার ৯ শতাংশ মানুষ করোনায় আক্রান্ত। তাদের মধ্যে ৭৮ শতাংশই উপসর্গহীন। গত ১৮ এপ্রিল থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত রাজধানী ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় জরিপ করে এ দুটি প্রতিষ্ঠান। দুই সিটির তিন হাজার ২৭৭ পরিবারের ওপর এ জরিপ পরিচালনা করা হয়। এর মধ্যে ২১১ লক্ষণযুক্ত পরিবার পাওয়া যায়। এসব লক্ষণযুক্ত পরিবারের মধ্যে থেকে ৪৩৫ উপসর্গহীন ব্যক্তি শনাক্ত হন। এর মধ্যে ২০১ জনের পরীক্ষা করা হয়। আর উপসর্গহীন পরিবারের মধ্য থেকে ৮২৭ জন উপসর্গহীন ব্যক্তি শনাক্ত হন। তাদের মধ্য থেকে ৫৩৮ জনের পরীক্ষা করা হয়। এ জরিপে ঢাকার ছয়টি বস্তিও অন্তর্ভুক্ত ছিল। এখানে পরিবারের সংখ্যা ছিল ৭২০টি। এ বিষয়ে আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডাঃ এএসএম আলমগীর বলেন, দুটি কারণে এ জরিপ হয়েছে। প্রথমটি হলো- নিজ উদ্যোগে পরীক্ষা করাতে এসেছে এবং তাদের মধ্যে পজিটিভ পাওয়া গেছে- এমন ব্যক্তিদের মাধ্যমে সমাজে রোগটি কি অবস্থায় আছে তা আমরা দেখতে চেয়েছি। আর দ্বিতীয় কারণ হলো- উপসর্গহীন মানুষও যে আছে, সেটি তুলে ধরা। আর উপসর্গ থাকুক আর না থাকুক, উভয়ের কাছে থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। আক্রান্ত ব্যক্তিকে দেখে সবাই ভয় পায়। কিন্তু উপসর্গহীন ব্যক্তিদের দেখে কেউ ভয় পায় না। মাস্ক পরাসহ সামাজিক দূরত্ব ও অন্যান্য নিয়ম মেনে চলার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করার জন্যই উপসর্গহীন ব্যক্তিদের বেছে নেয়া হয়েছে। এখন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা ও মাস্ক পরার বিষয়টি আরও জোরদার করতে হবে বলে মনে করেন তিনি। করোনা বিষয়ক দৈনিক অন লাইন ব্রিফিংয়ে প্রতিদিন করোনা টেস্ট করানোর জন্য অনুরোধ জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। কিন্তু অধিদফতরের আহ্বানে সাড়া দিচ্ছে না অধিকাংশ মানুষ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানদন্ডে বাংলাদেশের জনসংখ্যা অনুযায়ী দৈনিক ২৪ থেকে ২৫ হাজার নমুনা পরীক্ষা হওয়া দরকার। বর্তমানে বাংলাদেশের দৈনিক নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ১০ থেকে ১৩ হাজারে উঠানামা করছে। সীমিত নমুনা পরীক্ষার কারণে দেশে করোনাভাইরাসের নীরব সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, নমুনা পরীক্ষার জটিলতা কাটছে না। ল্যাবরেটরির সংখ্যা যতই বাড়ছে, নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ততই হ্রাস পেয়ে চলেছে। নমুনা পরীক্ষায় মানুষের আগ্রহ অনেকগুণ হ্রাস পেয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি পালন সন্তোষজনক না হওয়ায় সংক্রমণের অনুকূল পরিবেশ পেয়ে বসেছে করোনাভাইরাস। সম্প্রতি স্বাস্থ্য সেক্টরে সৃষ্ট নানা কেলেঙ্কারি ও সমন্বয়হীনতার কারণেও করোনা নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কার্যক্রমের গতি হ্রাস পেয়েছে। উচ্চ রোগী শনাক্তের হার ॥ দৈনিক নতুন রোগী শনাক্তের দিক দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। আর মোট পরীক্ষিত নমুনার ভিত্তিতে মোট শনাক্তের হার বিবেচনায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। তবে এশিয়ায় প্রথম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। মোট পরীক্ষিত নমুনার ভিত্তিতে মোট শনাক্তের হার মেক্সিকোতে ৪৪ শতাংশ, আর্জেন্টিয়ায় ২৮ শতাংশ, ব্রাজিলে ২১ শতাংশ , চিলিতে ২১ শতাংশ, বাংলাদেশে ২০ শতাংশ, কলম্বিয়ায় ১৯ শতাংশ, পেরুতে ১৮ শতাংশ, দক্ষিণ আফ্রিকায় ১৭ শতাংশ পাকিস্তানে ১৪ শতাংশ , ইরানে ১২ শতাংশ, ভারতে ৯ শতাংশ, যুক্তরাষ্ট্রে ৮ শতাংশ, সৌদি আরবে ৮ শতাংশ, ফ্রান্সে ৬ শতাংশ, স্পেনে ৫ শতাংশ, তুরস্কে ৫ শতাংশ, ইতালিতে ৪ শতাংশ, জার্মানিতে ৩ শতাংশ, রাশিয়ায় ৩ শতাংশ ও যুক্তরাজ্যে ২ শতাংশ। নমুনা সংখ্যার অবস্থা ॥ স্বাস্থ্য অধিদফতরের বুলেটিনে প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ১ জুন থেকে দৈনিক পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা ১১ হাজারে উঠে আসে এবং তা জুন মাসজুড়ে ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকে। দৈনিক পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা বাড়তে বাড়তে ১৫ জুন ১৪ হাজারে এবং ২০ জুনের মধ্যে ১৫ হাজারে পৌঁছে যায়। এভাবে ২৫ জুন থেকে ৩ জুলাই পর্যন্ত দৈনিক পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা ছিল ১৬ থেকে ১৮ হাজারের মধ্যে। গত ৪ জুলাই হঠাৎ করে দৈনিক পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা হ্রাস পেয়ে নেমে আসে ১৪ হাজারে এবং ৫ জুলাই থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত দৈনিক পরীক্ষিত নমুনার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ থেকে ১৪ হাজারের মধ্যে।

শেয়ার

আরও খবর
© All rights reserved © 2020 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazardristip41