1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : Dailik Drishtipat : Dailik Drishtipat
বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১০:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
চালের উৎপাদন বাড়লেও ভোক্তা পর্যায়ে কমছে না দাম রেকর্ড গড়া জয়ে সিরিজ বাংলাদেশের সাতক্ষীরায় কঠোর লকডাউনে চিকিৎসাধীন মৃত্যু ৯ \ শনাক্ত ৬১ জন আশাশুনি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সাথে ঢাকাস্থ ছাত্র কল্যাণ সমিতির শুভেচ্ছা বিনিময় বৃহস্পতির উপগ্রহ ইউরোপা অভিযানের প্রস্তুতি নাসার বিজিবি পৃথক অভিযানে সীমান্ত থেকে আটক ৫ শ্যামনগর বুড়িগোয়ালীনীতে রাস্তার বেহাল দশা পরিদর্শনে উপজেলা চেয়ারম্যান দোলন নূরনগরে বেশি দামে সার বিক্রি করার অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা খাজরায় মূর্তি চুরির ঘটনায় মন্দির পরিদর্শন করলেন সহকারি পুলিশ সুপার জামিল আহমেদ চামড়া শিল্পের দুরবস্থা নিরসন জরুরী

কোভিড টিকার ক্ষুদে বার্তার খবর নেই \ বাড়ছে ভোগান্তি

দৃষ্টিপাত ডেস্ক :
  • Update Time : সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১

জিএম শাহনেওয়াজ ঢাকা থেকে \ নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) টিকার নিবন্ধন ও পরবর্তীতে ক্ষুদে বার্তা পাওয়া নিয়ে ভোগান্তিতে রয়েছেন দেশের সাধারণ মানুষ। সুরক্ষা অ্যাপে কয়েকবার চেষ্টার পর নিবন্ধন করলেও এবার ক্ষুদে বার্তার (এসএমএস) অপেক্ষার পালা যেনো শেষ হচ্ছে না। নিবন্ধন করার পর সপ্তাহ পেরুলেও খবর নেই ক্ষুদে বার্তার। কারো অপেক্ষা আরও বেশি। আবার বার্তা পেলেও টিকাও দিনের দিন মিলছে না। এদিকে কর্তৃপক্ষের থেকে পাঠানো নিবন্ধন ফিরতি বার্তার তথ্য ছাড়া মেলে না টিকা প্রাপ্তি। নিবন্ধনের পর কয়েকদিনেও এসএমএস না পাওয়ায় অনেকে পছন্দের কেন্দ্রে গিয়ে খবর নিচ্ছেন ওটা ছাড়া টিকা দিতে পারবেন কি না? সবাই ফিরছেন নিরাশ হয়ে। আবার দেশের কয়েক জেলায় বার্তা পেয়েও কেন্দ্রে গিয়ে মিলছে না কাঙ্খিত টিকা। সারাদেশের বিভিন্ন পর্যায়ের মানুষের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এদিকে টিকার কার্যকারিতা প্রায় শতভাগের কাছাকাছি। দেশে প্রথম দেওয়া এ্যান্ট্রেজেনকার টিকার ৯৮ শতাংশ মানুষের মধ্যে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেয়া দেয়নি। এখন সিনোফার্মের টিকাতেও সেই অর্থে শারীরিক অসুবিধার খবর এখনো পাওয়া যায়নি। ফায়জার ও মর্ডানার টিকাও সফল প্রয়োগ চলছে। ফলে টিকা পেতে মানুষের মধ্যে আগ্রহ বাড়ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্টরা। এর ফলে পর্যন্ত সংখ্যক মানুষ টিকার জন্য নিবন্ধন করছেন। এ কারণেই নিবন্ধনকারীরা এসএমএস পেতে সময় লাগছে। তারা বলছেন, এতে ভোগান্তির কিছু নেই; সময়মতো এসএমএস পেয়ে টিকা দিতে পারবেন সবাই। এছাড়া তিন কারণেই এসএমএস পেতে বিলম্ব হচ্ছে বলে জানান টিকা কর্তৃপক্ষ। তেজগাঁও শিল্প এলাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন জাহিদ হোসেন। গত ১২ জুলাই টিকার নিবন্ধন করেন। তিনি পছন্দ হিসেবে কেন্দ্র নির্বাচন করেছেন মোহাম্মদপুর ফার্টিলিটি সার্ভিসেস অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টারে একশ বেডের মা ও শিশু হাসপাতাল। সপ্তাহ পার হলেও এখনো টিকা প্রাপ্তির এসএমএস পাননি তিনিও। আর কতোদিন অপেক্ষায় থাকতে হবে এ নিয়ে নিজের কাছেই অসহায় লাগছে বলে জানান জাহিদ। বলেন, তার এক আতœীয় সেনাবাহিনীতে চাকরি করেন। নিবন্ধন করতে গিয়ে জটিলতায় পড়েন। পরে তিনি তাকে সহায়তা করলেও নিজের সমাধান করতে পারছেন না বলে জানান জাহিদ হোসেন। আর মিরপুরের বাসন্দি মো. শফিউর রহমান। মিরপুর -১৪ ডেন্টাল কলেজ হাসপাতালে টিকার জন্য কেন্দ্র নির্বাচন করেন। গত ৯ জুলাই নিবন্ধনের পর এখনো টিকা প্রাপ্তির এসএমএস পাননি। ধনিয়া এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা আসমা উল হুসনা। সম্প্রতি অসুস্থ মায়ের দ্রুত টিকা দেয়ার জন্য মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কেন্দ্র নির্বাচন করলেও এসএমএস এখনো আসেনি বলে জানান। শুধু জাহিদ ও আসমা একা নন অনেকেই এ সমস্যায় ভূগছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের টিকা ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মো. তৌফিক শাওন টিকার জন্য নিবন্ধনের পর এসএমএস পেতে বিলম্ব হচ্ছে বলে স্বীকার করেন। বলেন, তিন কারণে এই ভোগান্তি হচ্ছে। বিশেষ করে রাজধানীতে সমস্যাটা বেশি বলে জানান তিনি। কারণ এখানে প্রবাসীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়া হচ্ছে। বলেন, হাসপাতালগুলোতে কোভিড রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় কমানো হয়েছে টিকার বুথের সংখ্যা। আর সেরামের এ্যান্ট্রেজেনকার টিকা দৈনিক ও দ্রুত অনেক বেশি লোককে দেয়া গেলেও মর্ডানা ও ফায়জারের টিকা একটু সাবধানতা অবলম্বন করে দিতে হচ্ছে; এটাও বিলম্বের কারণ। এছাড়া টিকা পাওয়ার জন্য যারা নিবন্ধন করছেন সবাই দেখা যাচ্ছে বিএসএমএমইউ, কুর্মীটোলা অথবা মুগদা হাসপাতাল কেন্দ্র পছন্দ করছেন। আগে যেখানে টিকার জন্য ৮টি কোভিড রোগী বেড়ে যাওয়ায় সর্বোচ্চ বুথ চালাতে পারছি না। নার্সদের সবাইকে এখানে কাজ করাতে পারছি না। এসব জায়গাই নিবন্ধন বেশি হচ্ছে। আবার লালকুটি হাসপাতালে শনিবার নিবন্ধন করে রবিবার এসএমএস পাচ্ছেন। কারণ এখানে নিবন্ধন কম হচ্ছে। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয়ভাবে টিকা প্রাপ্তির তালিকা সমন্বয় করা হয় না; স্ব স্ব কেন্দ্র নিবন্ধন ও সামর্থ অনুযায়ী এসএমএস দেন। যারা এসব কেন্দ্র পছন্দ করছেন তাদের বিলম্ব হবে এটাই স্বাভাবিক। তিনি বলেন, অপেক্ষা করেন; যথাসময়ে টিকা পেয়ে যাবেন। কেউই টিকার বাইরে থাকবেন না।

শেয়ার

আরও খবর
© All rights reserved © 2020 dainikdristipat.com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazardristip41